অস্ট্রেলিয়ায় স্ট্রবেরিতে সূচ নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে, তদন্তের নির্দেশ

১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪:০০:২৫

অস্ট্রেলিয়ায় স্ট্রবেরিতে একের পর এক সূচ পাওয়ার ঘটনায় দেশজুড়ে উদ্বেগ বাড়ছে। জড়িতদের শাস্তির আওতায় আনতে কেন্দ্রীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

RELATED STORIES
অস্ট্রেলিয়ায় স্ট্রবেরিতে সূঁচ!

অস্ট্রেলিয়ায় এখন সব মিলিয়ে মোট ছয়টি প্রদেশ এবং অঞ্চলে বিক্রি হওয়া স্ট্রবেরির ভেতর সূচ পাওয়ার খবর আসার পর ঘটনাটিকে ‘নিষ্ঠুর অপরাধ’ আখ্যা দিয়েছেন এক মন্ত্রী।

স্ট্রবেরি খেয়ে গলায় সূচ আটকে একজন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

বাজারে একাধিক ব্র্যান্ডের স্ট্রবেরির ভেতর সূচ পাওয়ার পর বেশ কয়েকটি কোম্পানির স্ট্রবেরি বিক্রি বন্ধ করে দেওয়ার পাশাপাশি বিক্রি হওয়া পণ্য ফেরত চেয়েছে।

পূর্বসতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে নিউজিল্যান্ডে অস্ট্রেলিয়া থেকে আমদানি করা স্ট্রবেরি বিক্রি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

অন্তত ছয়টি ব্র্যান্ডের স্ট্রবেরির মধ্যে সূচ পাওয়া গেছে। সেগুলো হল: বেরি অবসেশন, বেরি লিসাস, লাভ বেরি, ডনিব্রুক বেরিস, ডিলাইটফুল স্ট্রবেরিস এবং ওয়েসিস।

অস্ট্রেলিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী গ্রেগ হান্ট অস্ট্রেলিয়া ও নিউ জিল্যান্ডের খাদ্য নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষকে এ ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, “এটি খুবই নিষ্ঠুর অপরাধ এবং জনসাধারণের উপর নির্বিচার হামলা।”

যেসব প্রদেশ এবং অঞ্চলে সূচ ভরা স্ট্রবেরি পাওয়া গেছে ওই সব অঞ্চলের স্থানীয় সরকারের পক্ষ থেকেও তদন্ত চলছে। তবে এখন পর্যন্ত এর জন্য দায়ী সন্দেহে কাউকে সনাক্ত করা যায়নি।

গত সপ্তাহে কুইন্সল্যান্ডে প্রথম স্ট্রবেরির ভেতর সূচ থাকার খবর পাওয়া যায়। তারপর একে একে নিউ সাউথ ওয়েলস, ভিক্টোরিয়া, অস্ট্রেলিয়ান ক্যাপিটাল টেরিটরি, সাউথ অস্ট্রেলিয়া ও তাসমানিয়া থেকে একই ধরনের খবর আসে।

কুইন্সল্যান্ড সরকার এ ঘটনায় জড়িতদের সম্পর্কে কেউ তথ্য দিলে তাকে এক লাখ অস্ট্রেলিয়ান ডলার পুরস্কার দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে।

প্রাদেশিক প্রধান বলেন, “কিভাবে একজন সুস্থ মনের মানুষ এরকম ভয়ঙ্কর কাণ্ড করে শিশু-কিশোর বা যে কোনো মানুষের স্বাস্থ্য এতটা মারাত্মক ঝুঁকিতে ফেলতে পারে?”

বৃহস্পতিবার কুইন্সল্যান্ড স্ট্রবেরি গ্রোয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বলা হয়, খুব সম্ভবত কোনো ‘অসন্তুষ্ট কর্মী’ এ কাজ করেছেন। তবে এ বিষয়ে কিছু বলার সময় এখনো হয়নি বলে মনে করছে পুলিশ।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে জনগণকে স্ট্রবেরি কেটে তারপর খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ায় স্ট্রবেরি পাকার মৌসুম চলছে। এ সময় এতে সূচ পাওয়ার ঘটনা নিয়ে জনমনে যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে তাতে স্ট্রবেরি বিক্রির উপর নেতিবাচক প্র
ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়াভাব পড়তে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন চাষীরা। এরই মধ্যে দেশজুড়ে স্ট্রবেরির দাম পড়তে শুরু করেছে।
য় দাম এতটাই কমে গেছে যে, চাষীদের উৎপাদন খরচও উঠবে না। অস্ট্রেলিয়ায় প্রতি বছর স্ট্রবেরি শিল্পে ১৩ কোটি অস্ট্রেলীয় ডলারের বাণিজ্য হয়।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: