প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

রুবেল আকন্দ

ত্রিশাল প্রতিনিধি ( ময়মনসিংহ )

ত্রিশালে পারিবারিক কলহের জেরে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা

৩০ আগস্ট ২০১৮, ১০:৫৬:১৩

রুবেল আকন্দ ত্রিশাল প্রতিনিধিঃ
পারিবারিক ঝগড়ার জের ধরে স্বামীর হাতেই খুন হলো ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলায় মঠবাড়ী ইউনিয়নের অলহরি দুর্গাপুর গ্রামে সুইটি আক্তার (২৫) নামে এক গৃহবধূর। এ ঘটনায় স্বামীসহ তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ। নিহতের পারিবার ও পুলিশের সূত্রে জানায়, প্রায় ৮ বছর আগে উপজেলার মঠবাড়ী ইউনিয়নের অলহরি দুর্গাপুর গ্রামের ছাবেদ আলীর ছেলে সাদ্দাম হোসেনের সঙ্গে একই উপজেলার বইলর ইউনিয়নের ভরাডোবা গ্রামের জয়নাল আবেদিনের মেয়ে সুইটি আক্তারের বিবাহ বন্ধন হয়। পারিবারিক ঝগড়ার জের ধরে ঈদ-উল-আযহা’র চার দিন আগে সুইটি আক্তার চলে আসে বাপের বাড়ীতে। গত বুধবার সকালে সুইটির স্বামী বাড়ির লোকজন সুইটির বাড়ী এসে অতীতের যা হয়েছে সব কিছু জন্য ক্ষমা চেয়ে সুইটিকে নিয়ে যায় স্বামীর বাড়ী উপজেলা মঠবাড়ী ইউনিয়নের অলহরি দুর্গাপুর গ্রামে। রাতের কোন এক সময় নিজেদের মধ্যে শুরু হয় আবারো ঝগড়া। এক পর্যায়ে স্বামী সাদ্দাম হোসেন স্ত্রী সুইটির গলায় দা দিয়ে কুপ দেয়। ভোরে রক্তাক্ত অবস্থায় সাদ্দাম ও তার ভাই শাহজাহান এবং আব্দুল্লাহ সুইটিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তবরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। সাদ্দাম ও তার ভাই শাহজাহান এবং আব্দুল্লাহ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লাশ রেখে পালানের সময় মমেকহা’র ক্যাম্পের পুলিশ তাদেরকে আটক করে ত্রিশাল থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করে।

তবে এ ঘটনায় এখনো কোন মামলা হয়নি। মাহমুদুল হাসান লাভলু জানান, মঙ্গলবার সকালে আমাদের বাড়ী থেকে সুইটির স্বামী সাদ্দাম অতীতের সকল ভুলের জন্য ক্ষমা চেয়ে বোনকে শশুরবাড়ীতে নিয়ে যায়। সেখানে পরিকল্পিত ভাবে রাতে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে আমরা এর দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই। নিহত সুইটির মামা রমজান আলী জানান, পারিবারিক ঝগড়ার কারনে আগেও ভাগ্নীর স্বামী সাদ্দামকে যৌতুকের দাবীকৃত বেশ কিছু টাকা দেয়া হয়। আবারও বেশ কিছুদিন যাবত টাকার জন্য চাপ দিতে থাকে। টাকা দিতে না পারায় তাদের পরিবারে প্রায়ই ঝগড়া লেগেই থাকতো। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিহত সুইটি আক্তারের ময়না তদন্ত শেষে বুধবার বিকালে পিত্রালয় উপজেলার বইলর ইউনিয়নের ভরাডোবা গ্রামে লাশ নিয়ে গেলে পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে। আত্নীয়-স্বজনদের কান্নায় ভারী হয়ে উঠে পরিবেশ। বাদ মাগরিব নামাজে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে জানান সুইটির মামা রমজান আলী।

তদন্ত কর্মকর্তা শরীফ হায়দার জানান, পারিবারিক ঝগড়ার জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় স্বামীসহ তিন জনকে আটক করে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: