fbpx
প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

আইনজীবী এ কি বললেন?

২৮ ডিসেম্বর ২০১৭, ১২:৩৩:৫২

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে চলমান মামলায় গতকাল মঙ্গলবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তিতর্ক শুনানিতে দিতীয় দিনের মতো বক্তব্য উপস্থাপিত হয়েছে। খালেদার আইনজীবী শুনানিতে দাবি করেন, দালিলিক প্রমাণ ছাড়াই অসৎ উদ্দেশ্যে মামলাটি দায়ের হয়েছে।

রাজধানীর বকশীবাজারে কারা অধিদপ্তরের প্যারেড মাঠে স্থাপিত ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালতে গতকাল সকাল প্রায় সাড়ে ১১টায় পৌঁছেন খালেদা জিয়া। বিচারক ড. আখতারুজ্জামান সকাল সাড়ে ১১টায় এজলাসে বসেন। মধ্যাহ্নভোজের এক ঘণ্টা বিরতি দিয়ে টানা পৌনে ৪টা পর্যন্ত খালেদা জিয়ার পক্ষে তাঁর আইনজীবীর বক্তব্য শোনেন বিচারক। পরে শুনানি মুলতবি ঘোষণা করেন। আজ ও আগামীকাল শুনানির জন্য আগে থেকেই দিন ধার্য রয়েছে।

গতকাল আদালতে খালেদার পক্ষে দিতীয় দিনের মতো যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার আবদুর রেজ্জাক খান। তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে মামলার প্রধান আসামি বানানো হয়েছে অসৎ উদ্দেশ্যে। কথিত এই ঘটনার সঙ্গে খালেদার সম্পৃক্ততা কোনোকালেই ছিল না। তদন্ত কর্মকর্তার আনা অভিযোগ ভিত্তিহীন।

তিনি কোনো তদন্ত না করে একটি মহলকে খুশি করতেই মনগড়া গল্পের ওপর প্রতিবেদন (চার্জশিট) দাখিল করেছেন। ’
ব্যারিস্টার রাজ্জাক আরো বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে একটি বিরাট অর্গানোগ্রাম থাকে। তাঁর সময় (খালেদা জিয়ার প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন) সেখানে সচিব পর্যায়ের, মুখ্য সচিব পর্যায়ের ১৫ জন পরিচালক ছিলেন। তাঁদের পক্ষ থেকে কোনো প্রকার অভিযোগ আসেনি যে এই টাকা প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে এতিম তহবিলে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে বা অন্য কোনো স্থান থেকে এসেছে। এটা কোনো সাক্ষীও বলেননি। দালিলিক-প্রামাণিক কোনো কিছুই প্রমাণ করতে পারেনি দুদক প্রসিকিউশন। তিনি (খালেদা জিয়া) পারিবারিক ঠিকানা ব্যবহার করেছেন, আর এটাই কি ক্ষমতার অপব্যবহার হলো?’

আদালতে দুদকের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট মোশাররফ হোসেন কাজল, মীর আহমেদ আবদুস সালাম, আমিন উদ্দিন মানিক ও মহানগর পিপি আবদুল্লাহ আবু। খালেদার পক্ষে অন্য আইনজীবীদের মধ্যে ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, আব্দুর রেজ্জাক খান, খন্দকার মাহবুব হোসেন, জয়নুল আবেদীন, এ জে মোহাম্মদ আলী, নিতাই রায় চৌধুরী, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, সানাউল্লাহ মিয়া, মাসুদ আহমেদ তালুকদার, খোরশেদ আলম, নুরুজ্জামান তপনসহ শতাধিক আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।

খালেদা জিয়ার আদালতে আসাকে কেন্দ্র করে বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা আদালতে হাজির হন। তাঁদের মধ্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, রুহুল কবীর রিজভী, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, নজরুল ইসলাম খান, আব্দুল্লাহ আল নোমান, শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, মির্জা আব্বাস, মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, আমানউল্লাহ আমান, আফরোজা আব্বাস, শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি, জয়নুল আবদীন ফারুক, খায়রুল কবীর খোকন, শায়রুল কবির খান প্রমুখ উল্লেখযোগ্য।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গত ২১ ডিসেম্বর মামলার অন্যতম আসামি খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হয়। এর আগে গত ১৯ ও ২৬ অক্টোবর এবং ২, ৯, ১৬ ও ২৩ নভেম্বর অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় এবং ২০১৬ সালের ১ ডিসেম্বর চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়া আত্মপক্ষ সমর্থন করে আদালতে বক্তব্য দেন।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: