fbpx

উত্তম চক্রবর্তী

মনিরামপুর(যশোর)

আজ মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৫তম জন্ম দিন : ২২ শে জানুয়ারি সাগরদাঁড়িতে শুরু হয়েছে সপ্তাহব্যাপী মধুমেলা

২৫ জানুয়ারি ২০১৯, ৮:৪৩:৫৪


উত্তম চক্রবর্তী,মণিরামপুর(যশোর) অফিস॥

আজ ২৫ শে জানুয়ারি শুক্রবার আধুনিক বাংলা সাহিত্যের রূপকার মহাকবি মাইকেল মদুসূদন দত্তের ১৯৫তম জন্মদিন। ১৮২৪ খ্রিষ্টাব্দের ২৫ জানুয়ারী সাগরদাঁড়ি গ্রামে জমিদার পিতা রাজনারায়ন দত্ত ও মাতা জাহ্নবী দেবীর কোল আলোকিত করে সোনার চামচ মুখে নিয়ে তিনি জন্ম নিয়েছিলেন। প্রাকৃতিক অপূর্ব লীলাভূমি, পাখি ডাকা, ছায়া ঢাকা, শষ্য সম্ভারে সম্বৃদ্ধ সাগরদাঁড়ি গ্রাম আর বাড়ির পাশে বয়ে চলা স্রোতস্বিনী কপোতাক্ষের সাথে মিলেমিশে শিশু মধুসূদন ধীরে ধীরে শৈশব থেকে কৈশোর এবং কৈশোর থেকে পরিণত যুবক হয়ে উঠেন। কপোতাক্ষ নদ আর মধুসূদনের দু’জনার মধ্যে গড়ে উঠে ভালবাসার এক অবিচ্ছেদ্য বন্ধন। মধুকবি যখন জন্ম গ্রহণ করেন সে সময়ে আজকের এই মৃত প্রায় কপোতাক্ষ নদ কাকের কালো চোখের মত স্বচ্ছ জলের জোঁয়ার ভাটায় ছিল পূর্ণযৌবনা। নদের প্রশস্ত বুক চিরে ভেসে যেত পাল তোলা সারি সারি নৌকার বহর আর মাঝির কন্ঠে শোনা যেত হরেক রকম প্রাণ উজাড় করা ভাটিয়ালী গান। শিশু মধুসূদন এ সব অপলক দৃষ্টিতে চেয়ে চেয়ে দেখত আর মুগ্ধ হয়ে যেত। স্রোতস্বিনী কপোতাক্ষের অবিশ্রান্ত ধারায় বয়ে চলা জলকে মায়ের দুধের সাথে তুলনা করে তাই কবি সুদুর ভার্সাই নগরে বসে রচনা করলেন বিখ্যাত সনেট কবিতা ‘কপোতাক্ষ নদ’। তিনি লিখলেন- ‘সতত হে নদ তুমি পড় মোর মনে, সতত তোমারি কথা ভাবি এ বিরলে’।

মহাকবির জন্মদিন উপলক্ষ্যে সাগরদাঁড়িতে উদ্বোধন করা হয়েছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সর্ববৃহৎ সপ্তাহ ব্যাপী মধুমেলা। এ উপলক্ষে সাগরদাঁড়িকে সাজানো হয়েছে বর্ণিল সাজে। এসএসসি পরীক্ষার কারণে ২৫ জানুয়ারির পরিবর্তে ২২ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে মধুমেলা যা চলবে ২৮ জানুয়ারি। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় কবির জন্মস্থান সাগরদাঁড়িতে ২২ জানুয়ারি বিকালে প্রধান অতিথি হিসেবে সপ্তাহব্যাপী মধুমেলার উদ্বোধন করেছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য এমপি।

প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ি ২০০১ সালে ১১ কোটি টাকা ব্যায়ে বাস্তবায়ন করা হয় মধুপল্লী নির্মাণ কাজ। সাগরদাঁড়ি মধুসূদন মিউজিয়াম, পিনিক কর্ণার, মধু মঞ্চ, সুদৃশ্য গেট নির্মিত হয়। এ ছাড়ারয়েছে পর্যটন কেšদ্র । প্রতিবছর শীতের শুরু থেকে বিভিন্ন পরিব্রাজক, শিক্ষা প্রতিষ্ঠাণ থেকে শিক্ষা ভ্রমন ও পিকনিক পার্টিও আগমন ঘটে থাকে সাগরদাঁড়িতে। দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সর্ববৃহৎ মেলায় রুপ নেয় মধু মেলা। কেশবুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন জানান, মেলার মাঠ নিরাপত্তা চাদরে মোড়া হয়েছে।

মেলা উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানূর রহমান সাংবাদিকদের জানান, মেলায় মধু ভক্তদের নিরাপত্তা বিধানে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্রতিদিন চলছে সার্কাস, মৃত্যুক’প, নাগরদোলা, বিসিকের কুঠির শিল্প স্টল সহ প্রতিদিন উন্মুক্ত মঞ্চে থাকছে মহাকবির সাহিত্য সৃষ্টির উপর বিষশয় ভিত্তিক আলোচনা, সাংকৃতিক অনুষ্ঠান নাটক ও যাত্রানুষ্ঠান।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: