fbpx
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

কবি চন্দ্রাবতী’র “শিব মন্দির”

১১ জুলাই ২০১৯, ৭:৩৪:৪৪

মো: জোবায়ের হোসেন খান, কিশোরগঞ্জঃ
(১৫৫০-১৬০০ খ্রী:) বাংলা সাহিত্যের প্রথম মহিলা কবি চন্দ্রাবতী। জিলা শহর কিশোরগঞ্জ থেকে তিন কিলোমিটার উত্তর-পূর্ব দিকে পাতোয়ারী গ্রামে, বাংলা সাহিত্যের মনসা মঙ্গল কাব্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি দ্বিজ বংশী দাসের কন্যা বিদূষী নারী কবি চন্দ্রাবতী জন্মগ্রহণ করেন। ষোড়শ শতাব্দীর এই কবি পিতার আদেশে আদিষ্ট হইয়া সর্বপ্রথম বাংলা ভাষায় রামায়ণ রচনা করেন। তাছাড়াও, মলুয়া ও দস্যু কেনারামের পালা তার উল্লেখযোগ্য রচনা।

কবি চন্দ্রাবতী শিবের উপাসক ছিলেন। তিনি শিব মন্দিরে বাংলা সাহিত্য চর্চাসহ শিবের আরাধনা করিতেন। লোকগীতি মৈমনসিংহ গীতিকার রচয়িতা নয়ন চাঁদ ঘোষ “চন্দ্রাবতী” গীতিকাব্য রচনা করেন।

কবি চন্দ্রাবতীর প্রেমের করুন পরিনতির কাহিনী আজও লোকমুখে শোনা যায়। চন্দ্রাবতীর বাল্যকালের বন্ধু জয় চন্দ্র চক্রবর্তীর বাড়ি ছিল ওপারে সুন্ধা গ্রামে। ইতিহাসে সুন্ধা নামে কোন গ্রাম পাওয়া না গেলেও এলাকার অনেকের ধারনা তাড়াইলের সিংদা (সুন্ধা) গ্রামে জয় চন্দ্র চক্রবর্তীরর বাড়ি ছিল। জয় চন্দ্রের সহিত কবি চন্দ্রাবতীরর প্রেম, এমনকি বিয়ের দিন ধার্য্য হয়।অন্যদিকে, জয় চন্দ্র মুসলমান রমণী আসমানি এর প্রেমে হাবুডুবু খেতে থাকে। এই ত্রিভুজ প্রেমের পরিণতি খুবই করুন হয়।

জয় চন্দ্র ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে ও আসমানি কে বিয়ে করে। অপরদিকে, কবি চন্দ্রাবতী প্রেমে ব্যর্থ হয়ে, বাংলা সাহিত্য চর্চা ও শিবের আরাধনায় মনোনিবেশ করে। কিছুকাল যাওয়ার পর জয় চন্দ্র তাহার ভুল বুঝতে পারে। জয় চন্দ্র পাতোয়ারী গ্রামে চন্দ্রার কাছে ফিরে আসে, মন্দিরের দরজায় চন্দ্রা কে ডাকে।কবি তখন শিব আরাধনায় মগ্ন। খানিক সময় পর কবি মন্দির থেকে বের হয়ে, ফুলেশ্বরী নদীতে জল আনতে গিয়ে দেখেন যে, নদীর জলে ভেসে আছে জয় চন্দ্রের নিথর দেহ। কবি এই দৃশ্য সইতে না পেরে ফুলেশ্বরী নদীর জলে আত্নহনন করেন।

কবি চন্দ্রাবতীর শিব মন্দিরটি প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের আওতাধীন থাকলেও, অদ্যাবধি পর্যন্ত পর্যাপ্ত সংস্কার ও সুরক্ষার উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।পর্যাপ্ত রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে বাংলা সাহিত্যের শত শত বছরের ঐতিহ্যের ধারক কবি চন্দ্রাবতীর স্মৃতি বিজড়িত শিব মন্দিরটি আজ হুমকির মুখে।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: