শিরোনাম
     করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ১,২৩০ ◈ আজকে মৃত্যু : ৩৩ ◈ মোট সুস্থ্য : ৭১৫,৩২১
প্রচ্ছদ / জাতীয় / বিস্তারিত

রাইতুল ইসলাম

বার্তা প্রধান

কুতুববাগের তোরণ ভাঙল ডিএনসিসি

১৮ ডিসেম্বর ২০১৭, ১২:১০:৫৮

অনুমতি ছাড়াই ফার্মগেটের শহীদ আনোয়ারা পার্কে বানানো একটি অস্থায়ী তোরণ ভেঙে দিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। কুতুববাগ দরবার শরিফের বার্ষিক ওরসের জন্য তোরণটি বানানো হয়েছিল।

আজ রোববার সকালে ডিএনসিসির অঞ্চল-৫–এর নির্বাহী কর্মকর্তা অজিয়র রহমানের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়। এ সময় পার্কের ভেতরে মঞ্চ তৈরির অন্যান্য সরঞ্জামও জব্দ করা হয়।

গত শতকের নব্বইয়ের দশকের শুরু থেকে ফার্মগেটের ইন্দিরা রোড ও খামারবাড়ির মাঝামাঝি জায়গায় অবস্থিত আনোয়ারা পার্কে নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার কুতুববাগ দরবার শরিফের এই ওরস আয়োজিত হয়ে আসছে। প্রতিবছর এ আয়োজন ঘিরে সেখানে মাসব্যাপী মঞ্চ সাজানোর কাজ চলে। এর সঙ্গে ওরস চলাকালে প্রচুর মাইকের ব্যবহার, আলোকসজ্জা এবং দান হিসেবে আসা গরু-ছাগল সড়কের ওপরে রাখার কারণে দুর্ভোগের অভিযোগ জানিয়ে আসছিলেন স্থানীয় বাসিন্দা

ডিএনসিসি কর্তৃপক্ষ বলছে, এ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক গত বছর ওরস আয়োজনের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। সে সময় আয়োজকেরা ২০১৮ সাল থেকে ওরসের কার্যক্রম ঢাকার বাইরে নিয়ে যাওয়ার লিখিত অঙ্গীকার করেন। এরপরেও চলতি বছর ওরস আয়োজনের জন্য আবার আবেদন করা হলে ডিএনসিসি তা নাকচ করে দেয়।

এ বিষয়ে ডিএনসিসির আঞ্চলিক কর্মকর্তা অজিয়র রহমান বলেন, ‘আয়োজকদের লিখিত প্রতিশ্রুতি অনুসারে ফার্মগেটে চলতি বছর ওরস আয়োজনের কোনো কথাই ছিল না। তারপরও এ বছর তাঁরা পুনরায় ওরস আয়োজনের আবেদন করেন। ১১ ডিসেম্বর ডিএনসিসির বোর্ড সভায় ওই আবেদন নাকচ করে দিলেও আয়োজকেরা তা তোয়াক্কা করেনি। এ অবস্থায় আজ (রোববার) সকালে ওরসের জন্য নির্মিত তোরণটি আমরা ভেঙে দিয়েছি। পার্কের ভেতর থেকে মঞ্চ তৈরির সরঞ্জামও সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।’

ডিএনসিসির এই কর্মকর্তা জানান, সকাল সাড়ে আটটা থেকে শুরু হওয়া এ অভিযানের সময় কোনো বাধা না এলেও আয়োজকদের পক্ষ থেকে তোরণ ও অন্যান্য সরঞ্জাম না সরানোর জন্য অনুরোধ করা হয়।

অজিয়র রহমান বলেন, ‘এ ছাড়া গতবারও ওরসের অনুমতি দেওয়ার কোনো ইচ্ছা ডিএনসিসির ছিল না। কিন্তু মাইকের সংখ্যা অর্ধেকে নিয়ে আসা, আলোকসজ্জা কমানো, সড়ক বন্ধ না রাখা, ওরস শেষে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্য অবকাঠামো সরিয়ে ফেলা—এমন অনেকগুলো শর্তের পরিপ্রেক্ষিতে শেষবারের মতো অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: