প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

কোনো দেশ বলতে পারবে না যে, কারও সঙ্গে আমাদের বৈরীতা আছে

১১ নভেম্বর ২০১৯, ১২:০৮:০৪

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘কোনো দেশ বলতে পারবে না যে, কারও সঙ্গে আমাদের বৈরীতা আছে। আমরা আমাদের পররাষ্ট্র নীতি (সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরীতা নয়) মেনে এবং অনুসরণ করে যাচ্ছি। এমনকি মিয়ানমার যে রোহিঙ্গাদের নির্যাতন করে আমাদের দেশে পাঠিয়েছে তাদের সঙ্গেও আমাদের ঝগড়া নেই।’

আজ সোমবার সকালে রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে তিন দিনব্যাপী ‘ঢাকা গ্লোবাল ডায়ালগ’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় তিনি রোহিঙ্গাদের বিষয় উল্লেখ করে বলেন, ‘কয়েক লাখ রোহিঙ্গা আমাদের দেশে আশ্রয় নিয়েছে। এ রোহিঙ্গা আমাদের জন্য নয় পুরো বিশ্বের জন্য হুমকি সরূপ।’ বিষয়টি অনুধাবন করে যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহণেরে আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘জাতির পিতার স্বপ্ন ছিল দেশকে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত করে গড়ে তোলা। তিনি জাতিসংঘের অধিবেশনে বিশ্বকে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত করে গড়ে তুলতে আহবান জানান। শান্তি ও নিরাপত্তা ছাড়া কোন দেশই উন্নয়নের দারপ্রান্তে যেতে পারে না।’

বাংলাদেশের উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধলে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশে অর্থনীতি ক্রমবর্দমান। সারা বিম্ভে বাংলাদেশ দেশজ উৎপাদনে ৩০ তম হয়েছে। এ স্বীকৃতি আমরা ধরে রাখতে চাই। আমাদের সরকার ২০২১ ও ২০৪১ এ দুটি রূপকল্প হাতে নিয়েছে। আমরা এমডিজি বাস্তবান করে এসডিজি বাস্তবায়নে কাজ করছি। ২০০৬ সালে বাংলাদেশে দারিদ্রতা ছিল ৪১ শতাংশ এখন সেটা এসে দাঁড়িয়েছে ২১ শতাংশে। আমরা এ অবস্থার আরও উন্নতি করার জন্য কাজ করছি। আমরা ৮ম পঞ্চবার্ষিকী প্রণয়নে কাজ করছি। আমাদের সরকার শিক্ষার উপর গুরুত্ব দিয়েছে। ২ কোটি ৩ লক্ষ শিক্ষার্থীকে বিনামূলে বই দেওয়া হয়েছে। আমরা স্বাস্থ্যেও গুরুত্ব দিয়েছি। ইউনিয়নে কমিউনিটি ক্লিনিক ও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র করেছি। এখান থেকে ৩০ প্রকার ঔষুধ বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। এতে মা ও শিশুরা উপকার পাচ্ছেন।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘জলবায়ুর পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বাংলাদেশ। এ ক্ষতিরোধে কাজ করছে সরকার। দুর্যোগ মোকাবেলায় সতর্ক সরকার। প্রকল্প গ্রহণের আগে পরিবেশ রক্ষার ওপর গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।’

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিআইআইএসএস) ও ভারতের অবজার্ভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন (ওআরএফ) যৌথভাবে এ ডায়ালগের আয়োজন করছে। আয়োজনটি ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে মানব উন্নয়ন, প্রবৃদ্ধি ও সার্বিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়।

এতে এ অঞ্চলের ভৌগোলিক ও রাজনৈতিক উন্নয়ন পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হবে। বিশ্বের ৫০টি দেশ থেকে প্রায় ১৫০ বিশিষ্ট ব‌্যক্তি এ সংলাপে অংশ নেবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এ আয়োজন চলবে ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত। ডায়ালগের বিভিন্ন পর্বে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব, ঢাকায় নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার জুলিয়া নিবলেট, ওআরএফের সভাপতি সমীর সরণ প্রমুখ বক্তব্য রাখবেন।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: