গতি ফিরে পেয়েছে টেকনাফ-মংডু সীমান্ত বাণিজ্য

২৯ নভেম্বর ২০১৭, ১১:০৩:৪৩

অচলাবস্থার পর গতি ফিরে পেয়েছে টেকনাফ-মংডু সীমান্ত বাণিজ্য। অক্টোবর এক মাসেই টেকনাফ স্থল বন্দর কাস্টমস রাজস্ব আয় করেছে ৯ কোটি ৫৫ লক্ষ ৯১ হাজার ৮৯৪ টাকা। যা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) নির্ধারিত মাসিক লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে ২ কোটি ৪১ লক্ষ ৯১ হাজার ৮৯৪ টাকা বেশী। অক্টোবর মাসের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) নির্ধারিত মাসিক লক্ষ্য মাত্রা ছিল ৭ কোটি ৪ লক্ষ টাকা। ২৬ নভেম্বর বিকেলে টেকনাফ স্থল বন্দর কাস্টমস সূত্র উক্ত তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, অক্টোবর মাসে টেকনাফ-মংডু সীমান্ত বাণিজ্যের আওতায় টেকনাফ স্থল বন্দর দিয়ে ৪৮ কোটি ৫৮ লক্ষ ৪৯ হাজার ৮৭৫ টাকা মূল্যের পণ্য মিয়ানমার থেকে আমদানী হয়েছে। এতে ৪৮ কোটি ৪৫ লক্ষ ৮১ হাজার ২৪০ টাকা মুল্যের পণ্য শুল্কযুক্ত এবং ১২ লক্ষ ৬৮ হাজার ৬৩৫ টাকা মুল্যের পণ্য শুল্কমুক্ত। ৩১১টি বিল অব এন্ট্রির বিপরীতে পণ্য আমদানী খাতে টেকনাফ স্থল বন্দর কাস্টমস রাজস্ব আয় করেছে ৯ কোটি ৫৫ লক্ষ ৯১ হাজার ৮৯৪ টাকা। ভয়াবহ রোহিঙ্গা সমস্যা থাকা সত্বেও অক্টোবর মাসে শাহ পরীর দ্বীপ ক্যাডল করিডোর দিয়ে ৮ হাজার ৭৮৭টি গরু, ১ হাজার ৮৮টি মহিষ এবং ৩১৪টি ছাগল আমদানী হয়েছে। প্রতিটি গরু ও মহিষ ৫০০ টাকা এবং ছাগল প্রতিটি ২০০ টাকা হারে এ খাতে টেকনাফ স্থল বন্দর কাস্টমস রাজস্ব আয় করেছে ৫০ লক্ষ ৩০০ টাকা। তাছাড়া অক্টোবর মাসে ২৭টি বিল অব এক্সপোর্টের মাধ্যমে ১ কোটি ৩ লক্ষ ৮৮ হাজার ৩৯৪ টাকা মুল্যের বাংলাদেশী পণ্য টেকনাফ স্থল বন্দর দিয়ে মিয়ানমারে রপ্তানী হয়েছে। তম্মধ্যে ১১টি চালানে ৮৪ লক্ষ ৮ হাজার ৬৫৮ টাকা মূল্যের ১৩২.৬৪৪ মেট্রিক টন বাংলাদেশী গেঞ্জি, ১টি চালানে ১ লক্ষ ৪ হাজার ৪৫৮ টাকা মূল্যের ১.২৭৮ মেট্রিক টন মানুষের চুল, ২টি চালানে ১ লক্ষ ৪ হাজার ৬২২ টাকা মূল্যের ১.১৬ মেট্রিক টন শুটকি মাছ, ৪টি চালানে ৯ লক্ষ ৪৮ হাজার ১৩৪ টাকা মূল্যের ৫.৮ মেট্রিক টন পাইস্যা মাছ, ১টি চালানে ৬ হাজার ১৩০ টাকা মূল্যের ০.১৫ মেট্রিক টন চিপস, ৫টি চালানে ৩ লক্ষ ৭৮৭ টাকা মূল্যের ০.৯২ মেট্রিক টন ফিসিপলেটস, ১টি চালানে ২ লক্ষ ৬৪ হাজার ৬৭৭ টাকা মূল্যের ১.১৩ মেট্রিক টন গাজী প্লাস্টিক ট্যাংক, ১টি চালানে ১ লক্ষ ৩ হাজার ৮০৪ টাকা মূল্যের ১.০০০ মেট্রিক টন এ্যালুমুনিয়াম প্রোডাক্টস, ১টি চালানে ১ লক্ষ ৪৭ হাজার ১২৪ টাকা মূল্যের ০.৬ মেট্রিক টন বাংলাদেশী লুঙ্গি।

তুলনামূলক সেপ্টেম্বর মাসের খতিয়ান হচ্ছে ১৪১টি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে আমদানী হয়েছিল মাত্র ২৮ কোটি ৪৭ লক্ষ ২২ হাজার ৬৬২ টাকা মূল্যের পণ্য। এতে রাজস্ব আয় হয়েছে মাত্র ৫ কোটি ৬৭ লক্ষ ১৬১ টাকা। এ মাসে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) নির্ধারিত মাসিক রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য মাত্রা ছিল ৬ কোটি ৮২ লক্ষ টাকা। নির্ধারিত লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে ১ কোটি ১৪ লক্ষ ৯৯ হাজার ৮৩৯ টাকা কম আয় হয়েছে। রপ্তানি বাণিজ্যের চিত্র ছিল আরও শোচনীয়। আগে প্রতি মাসে কয়েক কোটি টাকা মূল্যের শতাধিক চালানে বিভিন্ন প্রকারের বাংলাদেশী পণ্য টেকনাফ স্থল বন্দর দিয়ে মংডু টাউন শীপে রপ্তানি হত। কিন্ত সেপ্টেম্বর মাসে মাত্র ১৬টি চালানে ৩৭ লক্ষ ৯১ হাজার ৮৯২ টাকা মূল্যের ৭ প্রকারের বাংলাদেশে উৎপাদিত পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে ৪টি চালানে ২৫ লক্ষ ৬০ হাজার ৮৩ টাকা মূল্যের ৪৪.৪৮ মেট্রিক টন বাংলাদেশী গেঞ্জি, ৩টি চালানে ১ লক্ষ ৫৬ হাজার ৯৬০ টাকা মূল্যের ১.৯২ মেট্রিক টন মানুষের চুল, ৩টি চালানে ৯ হাজার ৮১০ টাকা মূল্যের ০.০৮ মেট্রিক টন শুটকি মাছ, ২টি চালানে ৭ লক্ষ ৩ হাজার ৫০ টাকা মূল্যের ৫.৯ মেট্রিক টন ফাইস্যা মাছ, ১টি চালানে ৩০ হাজার ৬৫৬ টাকা মূল্যের ০.৭৫ মেট্রিক টন চিপস, ২টি চালানে ২ লক্ষ ৬৯ হাজার ৭৭৫ টাকা মূল্যের ০.৮২৫ মেট্রিক টন ফিসিপলেটস, ১টি চালানে ৬১ হাজার ৫৫৮ টাকা মূল্যের ১.৫ মেট্রিক টন জুট ব্যাগ।

তবে কুরবানীর ঈদের মাসে হওয়ায় গবাদি পশু আমদানী খাতে আয় ভাল ছিল। ঈদের আগে থেকেই দলে দলে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের ঢল নেমেছিল। সেই সাথে বৈধ ও অবৈধ পথে গবাদিপশু এসেছে প্রচুর। ২ সেপ্টেম্বর শনিবার বাংলাদেশে ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে গবাদিপশু আমদানীর জন্য টেকনাফের হ্নীলা ও শাহ পরীর দ্বীপ ২টি ক্যাডল করিডোর রয়েছে। তম্মধ্যে হ্নীলা করিডোর দিয়ে কোন গবাদিপশু আমদানী হয়নি। শাহ পরীর দ্বীপ ক্যাডল করিডোর দিয়ে সেপ্টেম্বর মাসে মোট গবাদিপশু আমদানী হয়েছে ৯ হাজার ৯৪২টি। এরমধ্যে ৬ হাজার ৯৪৬টি গরু, ৪৩০টি মহিষ, ২ হাজার ৫৬৬টি ছাগল। প্রতিটি গরু ও মহিষ ৫০০ টাকা এবং ছাগল ২০০ টাকা হারে এ খাতে মোট রাজস্ব আয় হয়েছে ৪২ লক্ষ ১ হাজার ২০০ টাকা।

উল্লেখ্য, ২৪ আগস্ট রাতে মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে সহিংস ঘটনার পর ২৫ আগস্ট থেকে মিয়ানমারের মংডু শহর থেকে টেকনাফ স্থল বন্দরে সীমান্ত বাণিজ্যের কোন পণ্য আসেনি। অঘোষিত ভাবে বন্দ হয়ে গিয়েছিল টেকনাফ-আকিয়াব সীমান্ত বাণিজ্য। ব্যবসায়ীদেরকে মংডু টাউন শীপের কতৃপক্ষ টেকনাফ বন্দরে

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: