করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ৪,০১৯ ◈ আজকে মৃত্যু : ৩৮ ◈ মোট সুস্থ্য : ৬৬,৪৪২
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

ঘুর্ণিঝড় আম্ফানে পূর্ব-সুন্দরবনে ক্ষয় ক্ষতির পরিমান প্রায় দুই কোটি টাকা

২৬ মে ২০২০, ৯:৫২:০৩

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধিঃ
সুপার সাইক্লোন আম্ফান পূর্ব সুন্দরবনে ৮ ঘন্টার মত তান্ডব চালায়। ক্ষতির পরিমান প্রায় দুই কোটি টাকার। এতে বনজ সম্পদের ক্ষতির পরিমান ৭ লাখ ৬ হাজার ১০০। মারা যায়নি রয়েল বেঙ্গল টাইগার ও হরিণসহ অন্য কোন বন্যপ্রানী। শরণখোলা ও চাঁদপাই রেঞ্জের দুই সহকারী বন সংরক্ষকের নেতৃত্বে গঠিত তদন্ত কমিটির দাখিলকৃত রিপোর্টে এ ক্ষয়-ক্ষতির চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।
দাখিলকৃত রিপোর্ট সোমবার সকালে মন্ত্রনালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। সুন্দরবন পূর্ব বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ বেলায়েত হোসেন জানান, ঘুর্ণিঝড় আম্ফান সুন্দরবনের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়ায় উপকূলবাসী রক্ষা পেলেও পূর্ব-সুন্দরবনের অনেক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে। সুন্দরবনের ক্ষয়-ক্ষতি নিরূপনে গত ২১মে শরণখোলা রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ জয়নাল আবেদীন ও চাঁদপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ এনামুল হকের নেতৃত্বে দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির সদস্যরা সুন্দরবন পরিদর্শন করে রোববার বিভাগীয় বন কর্মকর্তার দপ্তরে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমানের প্রতিবেদন দাখিল করেন।

প্রতিবেদনে দুই রেঞ্জে বনায়ন করা নারকেল, তাল, ঝাউ, বট ও রেইনট্রি গাছসহ বিভিন্ন প্রকারের ২৬ টি গাছ উপড়ে গেছে এবং বেশ কয়েকটি গাছের লট ভেসে গেছে, ১৮ টি কাঠের জেটি, ১৬টি ফরেস্ট অফিস ও ৮টি বনরক্ষীদের স্টাফ ব্যারাকের চাল উড়ে এবং গাছ পড়ে ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে, ২১টি সোলার, ১৬টি পানির ট্যাঙ্ক, ১টি পল্টুন, ১টি ওয়াচ টাওয়ার, দুইটি গোলঘর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বন্যপ্রানী প্রজনন কেন্দ্রের হরিণ ও ডলফিনের শেড ভেঙে লন্ডভন্ড হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। এছাড়া অবকাঠামোগত ১৭ টি পুকুর জলোচ্ছাসে লবণ পানিতে তলিয়ে গেছে । এতে সুন্দরবনে বাঘ-হরিণসহ বন্যপ্রানীদের খাবার পানির উৎসে চরম সংকট দেখা দিয়েছে।
ডি.এফ.ও জানান, এসব ক্ষতি টাকার হিসাবে ২৬টি গাছের মূল্য ১লাখ ৩৪ হাজার ৫০০, ভেসে যাওয়া লটের মূল্য ৫ লাখ ৭১ হাজার ৬০০ এবং অবকাঠামোর ক্ষতির পরিমান ১ কোটি ৬০ লাখ ৬৭ হাজার ৮০০শত টাকা। মোট ক্ষয়ক্ষতির পরিমান কোটি ৬৭লাখ ৭৩ হাজার ৯০০ টাকা। ক্ষয়-ক্ষতি নিরুপনের রিপোর্ট মন্ত্রনালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। এখন বরাদ্ধ সাপেক্ষে ক্ষতিগ্রস্থ অবকাঠামোগুলো সংস্কার করা হবে।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: