শিরোনাম
◈ শারদীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষ্যে সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম মিলন ◈ শারদীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষ্যে সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন মণিরামপুর উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল ইসলাম ◈ মাননীয় সংসদ সদস্য এস এম শাহজাদা (এমপি) মহোদয়ের পক্ষ থেকে শারদীয়ার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ৬‌ন‍ং ডাকুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ-প্রার্থী গাজী মোস্তফা কামাল ◈ শারদীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষ্যে সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন চালুয়াহাটি ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ইমরান খান পান্না ◈ শারদীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষ্যে সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন রাজগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি রবিউল ইসলাম রবি
     করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ০ ◈ আজকে মৃত্যু : ০ ◈ মোট সুস্থ্য : ৩১০,৫৩২
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

চট্টগ্রামে ভয়ঙ্কর প্রতারক পারভীন র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৮:১১:৩৬

চট্টগ্রাম ব্যুরো::
কখনো ম্যাজিস্ট্রেট কখনো ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালক আবার ক্যাব সভাপতি, সাংবাদিক, এনজিও বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী, দেশি বিদেশি নিয়োগকারী সংস্থার মহাব্যবস্থাপক, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের আইনজীবী- একেক সময় একেক পরিচয়ে প্রতারণার ফাঁদ পেতে আসছিলেন পারভীন আক্তার।
তার প্রতারণার ফাঁদে পড়ে নিঃস্ব হয়েছে শ্রমজীবী দরিদ্র মানুষ থেকে শুরু করে চাকরিপ্রত্যাশী বেকার যুবকও। স্বীকৃতি নামে একটি এনজিওর নাম দিয়ে সঞ্চয় ও ঋণদান কর্মসূচি গ্রহণের নামে চট্টগ্রাম নগরে সঞ্চয় সংগ্রহ করে সেই টাকা আত্মসাৎ করার ঘটনায় এবার পারভীনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৭।

রোববার (২৭ সেপ্টেম্বর) র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) নগরীর পাহাড়তলী থানাধীন ডিটি রোড এলাকায় ঢাকা ভবনের ১০ম তলায় স্বীকৃতি নামক ভুয়া সংস্থার অফিসে অভিযান চালিয়ে অভিযান চালিয়ে ভয়ঙ্কর প্রতারক পারভীন আক্তারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পারভীন ওই কথিত সংস্থার প্রধান। প্রতারণা করতে গিয়ে তিনি একাধিকবার ধরা পড়েন। ছাড়া পেয়ে ফের প্রতারণা অব্যাহত রাখেন পারভীন। চট্টগ্রামের বিভিন্ন থানায় এবং আদালতে তার বিরুদ্ধে ১০টির বেশি প্রতারণা মামলা আছে।

অভিযানের সময় পারভীনের অফিস এবং তার বাসায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণে সঞ্চয় ও ঋণ পাসবই, পূরণ করা চেক, স্বাক্ষর করা ফাঁকা চেক, বিভিন্ন ব্যাংকের চেক বই ও জমা বই, চুক্তিনামা, স্বাক্ষর করা ফাঁকা স্ট্যাম্প, ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের জরিমানা আদায়ের রশিদ, সমাজসেবা অধিদপ্তরের কর্মকর্তার সিল, স্বীকৃতি নামক সংস্থার ডেবিট ও ক্রেডিট ভাউচার বই, ফিক্সড ডিপোজিট রশিদ বই, অনুদান আদায়ের রশিদ বই, ক্যাশ পজিশন বই, প্যাড, বিদেশগমনের লিফলেট, বাংলাদেশ সরকারের মনোগ্রাম সম্বলিত ভিজিটিং কার্ড, নিয়োগপত্র, লেজার বই, অঙ্গীকারনামা বই, মাসিক চাঁদা আদায়ের রশিদ, মাইক্রোফাইন্যান্স কর্মসূচির বই, হিসাব খোলার বই, সাপ্তাহিক টপশিট, মাসিক সঞ্চয় আবেদন বই, প্রকল্প প্রস্তাব, আইডি কার্ড, ৪টি পাসপোর্ট, গ্রেপ্তারকৃত আসামির একটি ভুয়া এনআইডি কার্ডসহ আরো বিপুল পরিমাণ কাগজপত্র জব্দ করে র‌্যাব।

র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মাহমুদুল হাসান মামুন বলেন, কয়েকজন ভুক্তভোগী গ্রাহক ও কর্মচারী র‍্যাবের কাছে পারভীনের প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে অভিযোগ করে। নিম্ন আয়ের এসব ভুক্তভোগী জানান যে, তারা স্বীকৃতি নামের সংস্থাটির প্রধান পারভীন ও তার নিয়োগ করা বিভিন্ন কর্মচারীর মিষ্টি কথায় ভুলে ও বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার আশায় সংস্থাটিতে সঞ্চয় করেন। কিন্তু সঞ্চয়ের সীমা শেষ হয়ে গেলেও পারভীন আক্তার তাদেরকে মূল টাকা বা লাভ দিতে অস্বীকৃতি জানান।

তিনি বলেন, পারভীন আক্তারের প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য তার কর্মচারীরা চাকরি ছেড়ে দিতে চাইলেও তাদেরকে চুরির মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিয়ে চাকরি করতে বাধ্য করতেন। এছাড়াও তিনি প্রত্যেক কর্মচারীর কাছ থেকে জামানত হিসেবে ২০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা গ্রহণ করতেন। কিন্তু সেগুলো আর ফেরত দিতেন না।

‘২০১৪ সালে পারভীনের প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডের কারণে সমবায় অধিদপ্তর স্বীকৃতি সংস্থাটির লাইসেন্স বাতিল করে। তিনি মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটিতে লাইসেন্সের আবেদন করলেও প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য লাইসেন্স অনুমোদিত হয়নি। এরপরেও তিনি প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছিলেন।’

র‌্যাব কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান মামুন বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পারভীন বিভিন্ন পরিচয়ে তার প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছে। এসব কর্মকাণ্ডের সাথে আর কেউ জড়িত আছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে র‍্যাব।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: