fbpx
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

ছাতকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন বন্ধে বালু শ্রমিকদের প্রতিবাদ সভা

২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬:০৩:৫৩

মীর মোঃ আমান মিয়া লুমান, ছাতক(সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
ছাতকে বালু মহাল থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবীতে ছাতক বাজার একতা বালু উত্তোলন ও সরবরাহকারী ক্ষুদ্র সমবায় সমিতির উদ্যোগে বালু শ্রমিকদের এক প্রতিবাদ সভা গতকাল শনিবার সকালে সমিতির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমিতির সভাপতি আব্দুস ছাত্তারের সভাপতিত্বে ও সদস্য সামছু মিয়ার পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তারা বলেন, একটি প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় বালু মহাল থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন অব্যাহত রয়েছে। গত ১৮ সেপ্টেম্বর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ২টি ড্রেজারসহ জড়িত ৩জনকে গ্রেফতার করে। ওইদিন পুলিশ বাদী হয়ে ৪জনের নাম উলেখ করে অজ্ঞাত ৭-৮জনের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় মামলা(নং-১৯) দায়ের করা হয়। মামলার অন্যতম আসামী চাটিবহর গ্রামের সিহাব তার এলাকায় অবস্থান করে ড্রেজার মেশিন দিয়ে এখনো বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে। সরকারী বালু মহাল থেকে অবৈধ পন্থায় বালু উত্তোলনকারী শিহাবকে গ্রেফতার, দৃষ্টান্তমুলক শাস্তিসহ বালু মহালে ড্রেজার মেশিন স্থায়ীভাবে বন্ধ করে কয়েক হাজার বালু শ্রমিকের কর্মসংস্থান টিকিয়ে রাখার জন্য প্রশাসনের প্রতি দাবী জানান তারা। বক্তারা আরো বলেন, বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন অনুযায়ী যান্ত্রিকভাবে বালু উত্তোলকারীদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা ও সর্বোচ্চ ২বছরের কারাদন্ডসহ ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা করার আইনী বিধান রয়েছে। কিন্তু বালু উত্তোলনে ড্রেজারসহ জড়িতদের আটক করা হলেও নুন্যতম জরিমানা করে ছেড়ে দেয়ার ফলে এখানে অবৈধ ড্রেজার মেশিন বন্ধ করা যাচ্ছে না। এদিকে বালু মহাল লিজ গ্রহীতা লিজের সকল সরকারী শর্ত ভঙ্গ করে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছেন। শর্ত ভঙ্গ করে বালু উত্তোলন করলে লিজ বাতিল করার আইনী বিধান থাকলেও তা বাস্তবায়িত হচ্ছে না বলেও তারা অভিযোগ তুলেছেন। দেশের বৃহত্তম ধলাইনদী বালু মহাল থেকে একাধিক ড্রেজার মেশিন দিয়ে প্রশাসনের সামনেই নিয়মিত বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে ইজারাদার আব্দুর রহমানসহ একটি চক্র। ফলে ধলাই ব্রীজ পড়েছে মারাত্মক হুমকীর মুখে। পাশাপাশি বালু উত্তোলনকারী কয়েক হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছে। ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবীতে সিলেট বিভাগীয় কমিশনার, সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি, সিলেট ও সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও উভয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে সমিতির পক্ষ থেকে ইতিমধ্যেই একাধিক লিখিত আবেদন দেয়া হয়েছে দাবী করে তারা বলেন এসব আবেদন এখনো আলোর মুখ দেখেনি। সভায় বক্তব্য রাখেন, সমিতির সহ সভাপতি সোয়েব হোসাইন, সেক্রেটারী দিলোয়ার হোসেন, কোষাধ্যক্ষ ছমরু মিয়া, সদস্য ডালিম হোসেন, মখলিছ মিয়া, ছমরু মিয়া, শফিকুল ইসলাম, উপদেষ্টা হানিফ আলী, আমির হোসেন, ইকবাল হোসেন, রহিম উদ্দিন, আব্দুল আজিজ, আলী হোসেন, কামাল হোসেন, নাজির উদ্দিন, ফয়ছল আহমদ, জয়নাল আবেদীন, আব্দুস সাত্তার প্রমূখ।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: