করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ২,২৭৩ ◈ আজকে মৃত্যু : ২০ ◈ মোট সুস্থ্য : ৩৭৩,৬৭৬
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

ছাত্রলীগ দাবিদার বেপরোয়া প্রাঙ্গনের খুঁটির জোর কোথায়?

২১ নভেম্বর ২০২০, ৭:১৪:১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক।। নগরীর ১০নং ওয়ার্ডে কিশোর গ্যাং এর তালিকাভুক্ত প্রাঙ্গন খান আবারো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সর্বশেষ ছাত্রলীগ পরিচয় দিয়ে বাকিতে কেক নিতে না পেরে ব্যবসায়ীকে মারধর, অশ্লীল গালিগালাজ ও দেখে নেয়ার হুমকী প্রদানের অভিযোগ পাওয়া গেছে তার বিরুদ্ধে । ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী কবির হোসেন গত বৃহস্পতিবার বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানায় প্রাঙ্গনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, নগরীর ১০নং ওয়ার্ড জর্ডন রোডের বাসিন্দা আসাদ খানের ছেলে প্রাঙ্গন খান বিভিন্ন সময় কেক ব্যবসায়ী কবির হোসেনের দোকান থেকে কেক নিয়ে টাকা দেয়ার নামে তালবাহানা করতো। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) কবির হোসেনের মালিকানাধীন নগরীর ফকিরবাড়ি রোডের “কেক হাউসে” আসেন এবং ১০ পাউন্ডের একটি কেক এর অর্ডার দেন। যার মূল্য আসে ১৩শ’ টাকা। পরবর্তীতে সন্ধ্যায় প্রাঙ্গন ২/৩ জনকে সাথে নিয়ে অর্ডারকৃত কেক নিতে যায়। তখন ব্যবসায়ী কবির হোসেন টাকা চাইলে প্রাঙ্গন টাকা পরে দিবে বলে জানায় এবং কেক নিয়ে হাঁটা শুরু করে। এ সময় কবির হোসেন বাকিতে কেক দিবেনা বলে জানালে প্রাঙ্গন কবির হোসেনকে গালাগাল করে এবং একপর্যায় শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করে। এরপরেও ক্ষ্যান্ত হয়নি অভিযুক্ত প্রাঙ্গন খান। পুনরায় অভিযুক্ত প্রাঙ্গন কবির হোসেনকে কল করে ১০নং ওয়ার্ড অাওয়ামীলীগের কার্যালয়ে অাসতে বলে, কিন্তু কবির হোসেন ব্যাস্ত থাকায় এখন আসতে পারবেনা বলায় তাকে অশ্লীল ভাষায় গালাগাল ও এলাকা ছাড়ার হুমকী দিয়ে বলে দরকার হলে রাজনীতি ছেড়ে দিয়ে তোকে দেখে নিবো। তুই বাঁচতে পারবি না, এলাকায় থাকতে পারবি না।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, প্রাঙ্গণ নামের এই যুবক কিছু দিন পূর্বেও টাকার বিনিময়ে ১০নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের কর্মীদের সাথে মিছিল-মিটিংয়ে যেত। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধাপার্ক এলাকার বিভিন্ন ফুটপাথের দোকান থেকে জোরপূর্বক উৎকোচ উঠাতো। তাছাড়া সন্ধ্যার পরে ওই এলাকায় ঘুরতে আসা প্রেমিক যুগলদের আটকে রেখে টাকা আদায় করতো প্রাঙ্গনসহ তার সহযোগীরা। আর এইসব কর্মকান্ডের ফলে কিছুদিন পূর্বে কিশোর গ্যাং সদস্য’র তালিকায় প্রাঙ্গনসহ তার কয়েকজন সহযোগীর নাম আসে।

তারপর থেকে প্রশাসনের হাত থেকে রক্ষা পেতে ১০নং ওয়ার্ড অাওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পার্সোনাল মোটরসাইকেলের চালক হিসেবে তাকে দেখা যায়। আর এই কাজকে পুঁজি করে প্রাঙ্গন নিজেকে ছাত্রলীগ দাবী করে ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে চাঁদাবাজি করে বেড়ায়।ভুক্তভোগীসূত্রে জানাগেছে, বখাটে প্রাঙ্গন মহসিন মার্কেট সংলগ্ন বেল্ট এর দোকান, বঙ্গবন্ধু উদ্যানে অবস্থিত সরকারি বরিশাল মডেল স্কুল এন্ড কলেজ সংলগ্ন চায়ের দোকান, ফুটপাথে অবস্থিত দোকান এবং ডিসিঘাট সংলগ্ন স্পিডবোট ঘাট থেকেও মাসোহারা আদায় করার অভিযোগ রয়েছে প্রাঙ্গন বাহিনীর বিরুদ্ধে । এক কথায় ১০নং ওয়ার্ডে এক আতঙ্কের নাম প্রাঙ্গন। জানাগেছে, কিছুদিন পূর্বে সাউথ কিং রেস্তোরার সামনে ছাত্রলীগের এক নেতাকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেয়ারও অভিযোগ আছে প্রাঙ্গনসহ তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে। এত অভিযোগ থাকার পরেও কিভাবে এখনো অপকর্ম করে চলেছে প্রাঙ্গন এই প্রশ্ন ওয়ার্ডের জনসাধারনের। জনসাধারনের প্রশ্ন এই প্রাঙ্গণের খুঁটির জোর কোথায়? কার জোরে ওয়ার্ডের সর্বত্র নানা অপকর্ম করে চলেছে প্রাঙ্গন।

এ ব্যাপারে ১০নং ওয়ার্ড অা’লীগের সভাপতি সাইফুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান প্রাঙ্গণ ওয়ার্ডের কেউনা। ওয়ার্ডে কতো মানুষ থাকে কতো কিছু ঘটে সবার খবর তো অামি রাখিনা। এ বিষয়ে ওয়ার্ডের সাধারণ সসম্পাদকের সাথে কথা বলতে বলেন তিনি।

কিন্তু সাধারণ সম্পাদক শেখর দাসের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান গতকাল রাতেই মিমাংসা করার জন্য কবির ও প্রাঙ্গনকে ডাকা হয়েছে। আমরা এ ব্যাপারটা সমাধান করার চেস্টা করতেছি। কিন্তু অন্যবিষয়ে তিনি সদুত্তর দিতে পারেননি। এ বিষয়ে জনসাধারন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

sent Today at 6:06 PM

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: