fbpx

রাইতুল ইসলাম

বার্তা প্রধান

দুই শিশুর কীর্তিতে দুর্ঘটনা এড়াল ট্রেন

১৯ ডিসেম্বর ২০১৭, ১২:১২:৪৮

শিহাব ও টিটোনের বীরত্বে রক্ষা পেল ট্রেন দুর্ঘটনা।

লাল মাফলার দিয়ে দুই শিশু থামিয়ে দিল তেলবাহী ট্রেন। আর এতে দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেল কোটি টাকার তেল। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী স্টেশনের ৪০০ মিটার পূর্বদিকে ঝিনা রেলগেটে লাইন ভাঙা দেখে দুই শিশু ট্রেনটিকে থামিয়ে দেয়।
ওই দুই শিশুর নাম শিহাব হোসেন ও টিটোন ইসলাম। এর মধ্যে শিহাবের বয়স মাত্র ৬, আর টিটোনের ৭! উভয়ই ঝিনা গ্রামের বাসিন্দা। ওরা ঝিনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ে। শিহাব পড়ে প্রথম শ্রেণিতে আর টিটোন দ্বিতীয় শ্রেণিতে!
আড়ানী স্টেশনের মাস্টার নয়ন আহম্মেদ জানান, তেলবাহী ট্রেনটির চালক কে এম মহিউদ্দিন লক্ষ করেন দুই শিশুর লাল মাফলার দিয়ে ট্রেন থামানোর ইশারা করছে। এরপর তিনি ট্রেন থামালে দুই শিশু রেললাইন ভাঙার বিষয়টি তাঁকে জানায়। লাইন ভাঙার ফলে দুই ঘণ্টা রাজশাহী রুটের সব ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকে। বিষয়টি রাজশাহী রেলওয়ের কর্মকর্তাদের জানানো হয়। ঈশ্বরদী থেকে প্রয়োজনীয় লোকবল গিয়ে রেললাইন মেরামত করে। এরপর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

দুই শিশুই অতিদরিদ্র পরিবারের সন্তান। ফলে স্কুলে যাওয়ার আগে তারা মাঠে কাজ করে।

শিহাব ও টিটোন জানায়, সকালে ক্ষেত থেকে তারা বাড়ি ফিরছিল। এ সময় দেখে রেললাইন ভাঙা। দূরে ট্রেন আসতে দেখে তারা মাথা থেকে লাল মাফলার খুলে ট্রেন থামানোর ইঙ্গিত দিতে থাকে। তাদের লাল মাফলারের ইঙ্গিত দেখে চালক ট্রেনটি থামিয়ে দেয়।
ট্রেনচালক কে এম মহিউদ্দিন জানান, খুলনা থেকে তেল নিয়ে ট্রেনটি রাজশাহী যাচ্ছিল। পথে আড়ানী স্টেশনের একটু দূরে ঝিনা রেলগেট এলাকায় শিহাব ও টিটোন নামের দুই ছেলের লাল মাফলার দিয়ে সিগন্যাল দেখতে পান। তিনি ভেবেছিলেন ছেলে দুটি দুষ্টুমি করছে। প্রথমে ট্রেন না থামানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। পরে সিদ্ধান্ত পাল্টে ট্রেনটি নিয়ন্ত্রণ করে থামিয়ে দেন। এরপর ইঞ্জিন থেকে নেমে তিনি দেখেন রেললাইন ভাঙা। পরে আড়ানী স্টেশনের মাস্টার নয়ন আহম্মেদকে বিষয়টি জানানো হয়। ট্রেনচালক বলেন, দুই শিশুর উপস্থিত বুদ্ধিতে দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে ট্রেনটি।
ট্রেনের পরিচালক আরশেদ আলী বলেন, ‘হঠাৎ ট্রেন থামিয়ে দেওয়ার কারণে চালকের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছিলাম। পরে দেখি রেললাইন ভাঙা। বিষয়টি রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে তাৎক্ষণিক অবহিত করি। কর্তৃপক্ষ ঈশ্বরদী থেকে মিস্ত্রি নিয়ে এসে রেললাইন মেরামত করিয়ে দেয়। পরে দুই ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।’

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: