করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ১,৪৮৮ ◈ আজকে মৃত্যু : ২৬ ◈ মোট সুস্থ্য : ২৭৩,৬৯৮

নেই বাজার মনিটরিং : রাজগঞ্জে নির্ধারিত দামের বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে সার

২৬ আগস্ট ২০২০, ২:৪৪:৪৪

উত্তম চক্রবর্তী,মণিরামপুর(যশোর)অফিস॥ চলছে আমন চাষের ভরা মৌসুম। ধানের চারা রোপণ ও যত্ন নেওয়ার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন রাজগঞ্জ এলাকার কৃষকরা। বোরো ধানের ভালো দাম পাওয়ায় এবার আমন চাষে বেশি ঝুঁকছেন এখানকার কৃষকরা। তবে ধান চাষ করতে বিপাকে পড়তে হচ্ছে তাদের। সরকার-নির্ধারিত দামের বেশি দরে সার কিনতে হচ্ছে তাদের। ফলে কৃষকদের মধ্যে অসন্তোষ বিরাজ করছে। কৃষকদের সুবিধের কথা ভেবে ভর্তুকি দিয়ে সারের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। সরকারের নির্ধারিত মূল্য অনুযায়ী প্রতি কেজি ইউরিয়ার দাম ১৬ টাকা, টিএসপি ২২ টাকা, পটাশ ১৫ টাকা এবং ডিএপি’র কেজি ১৬ টাকা।

কিন্তু রাজগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় কৃষকরা সরকারের নির্ধারিত দামে সার পাচ্ছেন না। তাদেরকে ইউরিয়া ১৮ টাকা, পটাশ ১৬-১৮ টাকা, টিএসপি ২৮-৩০ টাকা এবং ডিএপি ১৯ টাকা কেজিতে কিনতে হচ্ছে। রাজগঞ্জ এলাকায় খবর নিয়ে এসব তথ্য জানা গেছে। বাজার মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা না থাকায় দোকানিরা ইচ্ছেমতো দাম হাঁকাচ্ছেন বলে অভিযোগ। আর বেশি দামে সার কিনলে আমনে কৃষকরা ক্ষতির শিকার হবেন বলে অভিযোগ তাদের। রাজগঞ্জ এলাকার মোবারকপুর গ্রামের কৃষক শহিদুল ইসলাম বলেন, ৪ বিঘা জমিতে ধান চাষ করিছি। বোরো ধানের চেয়েও আমনে বেশি দামে সার কিনতি হচ্ছে।

ইউরিয়া ১৮ টাকা, পটাশ ১৮ টাকা ও টিএসপি ২৮ টাকায় কিনিছি। একই দামে সার কিনেছেন বলে জানিয়েছেন রাজগঞ্জ এলাকার সাহাপুর গ্রামের কৃষক মিজানুর রহমান ও হয়াৎপুর গ্রামের কৃষক হাফিজুর রহমান। জানতে চাইলে রাজগঞ্জ বাজারের সার ব্যবসায়ীরা বলেন, বাইরে থেকে সার না আসায় বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। সেক্ষেত্রে কৃষকদের কাছ থেকে কেজিপ্রতি দুই-এক টাকা বেশি নিতে হচ্ছে। রাজগঞ্জের চালুয়াহাটি ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা এস.এম মারুফুল হক বলেন, ইউরিয়া সার ১৬ টাকা, টিএসপি ২২ টাকা, পটাশ ১৫ টাকা এবং ডিএপি’র কেজি ১৬ টাকা এর বেশি কোনো কৃষক বেশি দামে সার কিনলে রশিদসহ অভিযোগ করুক। তখন ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: