করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ২,৬৯৫ ◈ আজকে মৃত্যু : ৩৭ ◈ মোট সুস্থ্য : ১১,৫৯০
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

বরগুনার আমতলীতে ওসির কক্ষে আসামীর ঝুলন্ত লাশ!

২৬ মার্চ ২০২০, ৫:২৬:৫৭

বরগুনা জেলা প্রতিনিধি
বরগুনার আমতলী মডলে থানায় ওসরি কক্ষে থেকে শানু হাওলাদার (৫০) নামে এক ব্যক্তরি ঝুলন্ত মরদহে পাওয়া গছে।এ ঘটনায় পরদির্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রি ও ডিউটি অফসিার এ এসআই আরফিুর রহমানক সাময়কি বরখাস্ত করে তিনি সদস্য বশিষ্টি একটি তদন্ত কমটি গঠন করা হয়ছে।

পুলশি সূত্রে জানা গছে,বরগুনার আমতলী উপজলোর গুলশিাখালী ইউনয়িনরে পশ্চিম কলাগাছয়িা গ্রামরে গরু ব্যবসায়ী ইব্রাহীম হত্যা মামলায় সন্দহেভাজন আসামী হিসবে একই গ্রামরে শাহনিুর রহমান শানু হাওলাদারক জিজ্ঞিাসাবাদরে জন্য (২৫ মার্চ) বুধবার রাত ১১.৩০ মনিটিরে সময় পরদির্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জেন মস্ত্রিরি আটক করে থানায় নিয়ি আসেন পুলশি।

বুধবার রাতে পরদির্শক (তদন্ত) রুম তাকে জিজ্ঞিাসাবাদ শেষে ওই রুমইে আটকে রাখা হয়। পররে দিন (বৃহস্পতবিার) সকালে ডিউটিরত পুলশি সদস্য মনরি আসামীর মরদহে ফ্যানরে সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় দখে ওসি মোঃ আবুল বাশারকে জানায়। তিনি তাৎক্ষনকি বিষিয়টি বরগুনা জেলো পুলশি সুপার মারুফ হোসনেকে অবহিতি করনে।

পুলশি সুপার মোঃ মারুফ হোসনে (পপিএিম) তাৎক্ষনকি আমতলী থানায় এসে ঘটনাস্থল পরদির্শন করে তদন্ত পরিদির্শক মনোরঞ্জন মিস্ত্রি ও ডিউটি অফিসার এএসআই আরফিুর রহমানকে সাময়কি বরখাস্ত করনে। পরে অতিরিক্তি পুলশি সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মোঃ তোফায়লে হোসনে, অতরিক্তি পুলশি সুপার (সদর) মহরম আলী ও সহকারী পুলশি সুপার (আমতলী সার্কলে) মোঃ রবউিল ইসলামরে নেতৃত্বে তিনি সদস্য বশিষ্টি একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। পাশাপাশি তদন্ত কমিটিকে জরুরী ভিত্তিতি প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য নির্দেশ দেন।

পরবর্তীতে দুইজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে আমতলী উপজলো স্বাস্থ্য ও পরবিার পরকিল্পনা অফিসার ডাঃ শংকর প্রসাদ অধিকারী মরাদেহের সুরাতাহাল রিপোর্ট তৈরী করার জন্য পুলিশ মরদহে বরগুনা মর্গ নিয়ে যায়

অপরদিকে নিহতর পরিবারে দাবি করনে, গত ২৩ মার্চ সোমবার রাত অনুমানিক সারে ১১টার দিকে আমতলী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মস্ত্রিী নেতৃত্বে ৫ জন পুলশি শাহীনুর রহমান শানু হাওলাদারকে বাড়ী থেকে ইব্রাহীম হত্যা মামলায় সন্দহেজনক আসামী হিসাবে আটক করে থানায় নিয়ে আসে এবং গত ৩ দিন ধরে থানায় আটকে রাখে পাশবকি নির্যাতন করে।

এ হত্যা মামলায় পরদির্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রি শানুকে আসামী না করার জন্য পরবিাররে কাছে তিন লক্ষ টাকা দাবী করনে। গত মঙ্গলবার সকালে নিহতর পুত্র সাকিব থানায় এসে তার বাবাকে যেনো শারীরিক নির্যাতন না করে সে জন্য দশ হাজার টাকা পরদির্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রিকে দিয়ে যায়। গতকাল বুধবার সকালে পরিবারের লোকজন শানু হাওলাদাররে সাথ দেখা করতে থানায় আসলে পুলিশ তাদের দেখা করতে দেয়নি।

কান্নারত অবস্থায় শানু মিয়ার স্ত্রী ঝর্ণা বেগম বলনে, আমার নির্দোষ স্বামীকে ওসি মনোরঞ্জন মিস্ত্রি টাকার জন্য থানায় নির্যাতন করে হত্যা করে তার রুমের ফ্যানরে সাথে ঝুলিয়ে রেখেছে।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: