উত্তম চক্রবর্তী

মনিরামপুর(যশোর)

স্কুল ছাত্র পারভেজ হত্যা জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে

মণিরামপুরে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ৮:০২:১০

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি ॥

মণিরামপুরে পারভেজ হোসেন শিমুুল নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থীকে হত্যার প্রতিবাদে ও জড়িতদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন হয়েছে। বুধবার দুপুরে শিমুলের এলাকাবাসী স্থানীয়ভাবে এই মানববন্ধনের আয়োজন করেন। মানববন্ধনে শিমুলের স্কুলের সহপাঠি ও শিক্ষকসহ আশপাশের কয়েকটি স্কুলের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, স্বজন এবং আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দসহ শতশত এলাকাবাসী এসময় উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে অংশ নিয়ে এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, শিমুল হত্যার প্রায় দেড়মাস পার হতে চললেও ঘটনার সাথে জড়িতদের কাউকে পুলিশ আটক করতে পারেনি। এটা হতাশার। হত্যাকারী যেই হোক তাদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবি এলাকাবাসীর।

শিমুলের পিতা রফিকুল ইসলাম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যারা আমার ছেলের হত্যাকা-ের সাথে জড়িত থাকতে পারে বলে আমি সন্দেহ করছি তাদের ব্যাপারে পুলিশকে বারবার জানানো হলেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছেন না। ঘটনার সাথে প্রকৃতভাবে জড়িত এমন কাউকে পুলিশ এই পর্যন্ত আটক করতে পারেনি। পুলিশ এই পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এলাকা থেকে যাদের নিয়েছে,তাদের আমার ছেড়ে দিয়েছে।
রফিকুলের অভিযোগ, মামলা করার সময় তিনি কয়েকজনের নাম উল্লেখ করতে চাইলেও সেটা সম্ভব হয়নি। পরে অজ্ঞাত পাঁচ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। তিনি পুলিশকে বারবার আসামি গ্রেফতারে তাগিদ দিলেও তদন্তকারী কর্মকর্তা বিষয়টি আমলে নিচ্ছেন না। এমনকি ইচ্ছে থাকলেও তদন্তকারী কর্মকর্তা পরিবর্তন করতে পারছেন না।

তিনি বলেন, এলাকায় একটি ছেলেকে চাকরি দেওয়াকে কেন্দ্র করে ওই পরিবারটির সাথে আমার দ্বন্দ্ব হয়। সেই সূত্রধরে আমার ছেলে খুন হতে পারে। এছাড়া আমার ছেলে সবসময় বাড়ির পাশে একটি মাঠে র‌্যাকেট খেলত। ওই দিন তাকে মোবাইল করে ডেকে দূরে কাশিমপুর স্কুল মাঠে নিয়ে যাওয়া হয়। যারা কখনও র‌্যাকেট খেলে না, ঘটনার রাতে তেমন কিছু লোক খেলায় অংশ নিয়েছে। তাদেরকেও আমার সন্দেহ হয়।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা খেদাপাড়া ক্যাম্প পুলিশের ইনচার্জ এসআই রবিউল ইসলাম বলেন,‘ এই বিষয়ে অনেককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। চাকরির বিষয়টি নিয়ে যাদের নাম ছেলের পিতা বলছেন, সেটা আক্রশমূলক। মামলায় অজ্ঞাতনামা আসামি হওয়ায় রহস্য বের করতে সময় লাগছে।’

গত বছরের ১১ ডিসেম্বর সোমবার রাতে উপজেলার রোহিতা ইউনিয়নের সরসকাঠি গ্রামের রফিকুলের ছেলে শিমুলকে খেলার কথা বলে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। পরের দিন সকালে থানা পুলিশ বাড়ির পাশের একটি মাঠ থেকে শিমুলের রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে। ওই ঘটনায় অজ্ঞাতনামা পাঁচ জনকে আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন শিমুলের পিতা। শিমুল স্থানীয় কাশিমপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: