করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ৩,১৬৩ ◈ আজকে মৃত্যু : ৩৩ ◈ মোট সুস্থ্য : ১০৩,২২৭
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

মো. দ্বীন ইসলাম

চাঁদপুর প্রতিনিধি

মতলব উত্তরে ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান নেদায়ে ইসলামের নিবন্ধন বহাল চায় এলাকাবাসী

১৫ জানুয়ারি ২০২০, ৮:৪৪:৩৪

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ইসলাম শিক্ষামুলক প্রতিষ্ঠান ‘নেদায়ে ইসলাম’ এর নিবন্ধন বহাল চায় ফরাজীকান্দি এলাকাবাসী তথা মতলব উত্তর উপজেলাবাসী। ১৯৪৯ সাল থেকে এই প্রতিষ্ঠানটি মানুষের মাঝে ইসলাম শিক্ষা দিয়ে আসছে। সেই সাথে এতিম ও গরীব ছাত্রদেরও লেখাপড়া চলছে নেদায়ে ইসলাম এর আওতাভূক্ত আল-আমিন শিশুসদন কমপ্লেক্স এতিমখানায়।
গত ৮ আগস্ট ২০১৯ইং তারিখে নেদায়ে ইসলামের চেয়ারম্যান আল্লামা শায়খ মোস্তাক আহমেদ সেক্রেটারি জেনারেল ডাঃ মোঃ ইসমাইল হোসেন সিরাজী কর্তৃক স্বাক্ষরিত অত্র প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন বাতিলের জন্য একটি আবেদন জমা হয় সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কাছে। ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে কুমিল্লার দাউদাকান্দি এতিম ও প্রতিবন্ধী ছেলে মেয়েদের জন্য কারিগরী প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের জেনারেল ম্যানেজার (উপ-পরিচালক) নাজমুন নাহার কে আহ্বায়ক করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটিতে সহকারি পরিচালক (কুমিল্লা জেলা) ফারহানা আমিন ও মতলব উত্তর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা রুহুল আমিনও সদস্য আছেন। বুধবার (১৫ জানুয়ারী) ওই তদন্ত কমিটি মতলব উত্তর উপজেলার ফরাজীকান্দি কমপ্লেক্সে আসলেও আবেদনকারী দুজন বা তাদের কোনো প্রতিনিধি তদন্ত কমিটির সামনে হাজির হননি। কিন্তু নেদায়ে ইসলামের নিবন্ধন বাতিলের বিষয়ে তদন্ত কমিটি ফরাজীকান্দি কমপ্লেক্সে এসেছে এমন খবর ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ও গণ্যমান্য প্রায় ৫ শতাধিক লোক তদন্ত কমিটির সামনে এসে মতামত ব্যক্ত করেন এবং উক্ত প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন বহাল রাখার জোড় দাবী জানান। তারা নেদায়ে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা শায়খ বোরহানুদ্দিন (রাঃ) (বোরহান পীর কেবলা) এর হাতে গড়া সংগঠন ও তার স্মৃতির নেদায়ে ইসলামের নিবন্ধন বাতিলের বিরুদ্ধে জোড় বক্তব্য পেশ করেন। ১৯৬৩ সালে নিবন্ধন হওয়া এই প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন যাতে বাতিল না করে সরকারের উন্নয়ন চেয়ে দাবী জানান তদন্ত কমিটির কাছে।

এ বিষয়ে এলাকাবাসীদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের সাথে কথা হলে তারা জানান, নেদায়ে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা শায়খ বোরহান উদ্দিন (রা) এর মৃত্যুর পর তার সুযোগ্য সন্তান আল্লামা শায়খ ডঃ মানযুর আহমেদ আল-আহমাদী দীর্ঘ ৩৮ বছর নেদায়ে ইসলামের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে ছিলেন। ২০১২ সালে নেদায়ে ইসলামের চেয়ারম্যান ও ফরাজীকান্দি দরবারের পীর কেবলা আল্লামা শায়খ ডঃ মানযুর আহমেদ আল-আহমাদীর মৃত্যুর পর তার ভাই আমেরিকা প্রবাসী মোশতাক আহমেদ বিভিন্নভাবে নেদায়ে ইসলামের চেয়ারম্যান তথা এই দরবারের পীর হওয়ার চেষ্টা ও প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন সম্পদ বিক্রির চেষ্টা করে আসছেন। এ বিষয়ে কোন ধরনের সুবিধা করতে না পেরে নেদায়ে ইসলামের নিবন্ধন বাতিল করে নিজের নামে নতুন নিবন্ধন নিয়ে নেদায়ে ইসলামের কোটি কোটি টাকার সম্পদ হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি ভুয়া কমিটি দেখিয়ে প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন বাতিল করার লক্ষ্যে কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করেন। অথচ ২০১২ সালের পর থেকে এই নেদায়ে ইসলামের সকল প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে আসছেন শায়খ মানযুর পীর কেবলার সুযোগ্য সন্তান আল্লামা শায়খ মাসউদ আহমেদ। এই বিষয়গুলোও তদন্ত কমিটির কাছে উপস্থাপন করেন এলাকাবাসী।
এদিকে নেদায়ে ইসলামের নিবন্ধন বাতিলের আবেদনের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়ায় এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: