fbpx
প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

মায়া চৌধুরী নির্বাচন করতে পারবে কোন আইনী বাধা নেই

৩০ নভেম্বর ২০১৮, ১১:৩৭:০৫

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম এমপি।

অনলাইন ডেস্ক: দুর্নীতির মামলায় বেকসুর খালাস পাওয়ায় আওয়ামী লীগ নেতা এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বীরবিক্রম- এর একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে আইনগত কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী। গতকাল বৃহস্পতিবার তার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সাঈদ আহমেদ রাজা ইত্তেফাককে জানান, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় হাইকোর্ট মায়া চৌধুরীকে বেকসুর খালাস দিয়েছে। ফলে তার নির্বাচন করতে কোনো বাধা নেই। আর সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদে সংসদে নির্বাচিত হবার যোগ্যতা ও অযোগ্যতার বিষয়ে যেটি বলা হয়েছে সেটি একজন খালাসপ্রাপ্ত ব্যক্তির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয় বলেও জানান এই আইনজীবী। অ্যাডভোকেট সাঈদ জানান, মায়া চৌধুরীর ব্যক্তিগত কোনো ঋণ নেই, ফলে তিনি খেলাপিও নন।

প্রসঙ্গত, গত ৮ অক্টোবর দুর্নীতির মামলায় ১৩ বছরের সাজা বাতিল করে মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াকে বেকসুর খালাস দেয় বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কেএম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ। এর আগে ২০১০ সালের ২৭ অক্টোবর হাইকোর্টের অপর একটি ডিভিশন বেঞ্চ তাকে খালাস দিয়েছিল। খালাসের ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে দুদক। ২০১৫ সালের ১৪ জুন আপিল বিভাগ খালাসের ওই রায় বাতিল করে হাইকোর্টে আপিলের ওপর পুনঃশুনানির জন্য মামলার পক্ষগণকে নির্দেশ দেয়। ওই নির্দেশের পর আপিলের ওপর শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট তাকে খালাস দেয়। এই রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি এখনও প্রকাশ পায়নি। ফলে এই রায়ের বিরুদ্ধে কোনো আপিলও বিচারাধীন নেই।

এদিকে, চাঁদপুর-২ (মতলব উত্তর ও দক্ষিণ) আসনে আওয়ামী লীগের মূল প্রার্থী হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অবিভক্ত ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের দীর্ঘসময়ের সাধারণ সম্পাদক মায়া চৌধুরী নিজেই বুধবার স্থানীয় রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। গত রবিবার আওয়ামী লীগ তাকে দলীয় মনোনয়নের চিঠি দিয়েছে। কোনো কারণে মায়ার মনোনয়ন ফরম বাতিল হলে বিকল্প হিসেবে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা নুরুল আমিন রুহুলকে বুধবার আওয়ামী লীগ মনোনয়নের চিঠি দিয়ে রেখেছে।

জানা গেছে, ফৌজদারি মামলায় কেউ দুই বছর বা এর অধীক দণ্ডপ্রাপ্ত হলে নির্বাচনে অযোগ্য হবেন মর্মে উচ্চ আদালতের রায়ের পর মায়া চৌধুরী বৃহস্পতিবার রাতেই আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ও অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের সঙ্গে কথা বলেছেন। তারা দুজনেই মায়া চৌধুরীকে জানিয়েছেন একটি মামলায় দণ্ডিত হলেও উচ্চ আদালত থেকে খালাস পাওয়ায় তার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ক্ষেত্রে আইনি কোনো বাধা নেই। উল্লেখ্য, ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ইতিহাসের বর্বরতম জেল হত্যার সময় মায়া চৌধুরীও জাতীয় চার নেতার সঙ্গে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি ছিলেন।

সূত্র: ইত্তেফাক

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: