করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ০ ◈ আজকে মৃত্যু : ০ ◈ মোট সুস্থ্য : ৬০২,৯০৮
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

মুলাদীতে অাগুনের নাটক সাজিয়ে মিথ্যা মামলা, অতঃপর জমি দখল

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ৬:৫০:২২

নিজস্ব প্রতিবেদক ।। মুলাদীর কাজিরচর ইউনিয়নে পরিত্যক্ত নিজগৃহে অগ্নিকান্ডের নাটক সাজিয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করে অভিনব কায়দায় অন্যের জমি দখলের পায়তারা করছেন ভূমিদস্যু আবু তালেব বাহিনী। কয়েক বছর পূর্বেও একাধিকবার অগ্নিকান্ডের নাটক সাজিয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করে অন্যের বসতঘরের জায়গা দখল করেছেন বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা। এভাবে বছরের পর বছর গ্রামের সহজ-সরল ও অর্ধশিক্ষিত মানুষকে মিথ্যা মামলার জালে ফাঁসিয়ে তাদের জমি আত্মসাৎ করে আসছেন আবু তালেবসহ তার সাঙ্গপাঙ্গরা। আর এখন এই ধুরান্দার মামলাবাজ খ্যাত আবু তালেব বাহিনীর কুচক্রে অসহায় হয়ে পড়েছে এলাকার সহজ-সরল বাসিন্দারা।

অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, মুলাদী উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডস্থ রাঘুয়া এলাকার বাসিন্দা আবু তালেব মোল্লা, এসকেন্দার শরীফ ওরফে বিশাই শরীফ, শাহীন হাওলাদার, মনিরুজ্জামান শরীফ, ছাইফুল মোল্লা, ফিরোজ হাওলাদার, আল মামুন শরীফসহ তাদের সাঙ্গপাঙ্গরা এলাকার ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছেন। আর তাদের এ অন্যায়ের কাজে প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে সহযোগিতা করছে শিমু ও তানিয়া বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। তারা এলাকার সহজ-সরল মানুষের মধ্যে মামলা ভীতি সৃষ্টি করে তাদের জমিজমা আত্মসাৎ করে চলেছেন। আর তাদের এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে কেউ কথা বললেই তার নামে দায়ের করা হয় একের পর এক হয়রানীমূলক মামলা।

আবু তালেব বাহিনীর দায়ের করা মিথ্যা মামলায় জর্জরিত একই এলাকার বাসিন্দা জহিরুল হক জানান, আমার মা-বাবা কেউ বেঁচে নেই, কোন ভাই নেই। আমি আর আমার বোন আছে। আমার এই অসহায়ত্বের সুযোগে আবু তালেব কিছু বছর পূর্বে আমার বসতঘরের জমি দখলের জন্য রাতের আঁধারে নিজের ঘরে আগুনের নাটক সাজিয়ে আমাকে মামলার ভয় দেখিয়ে বিরোধপূর্ন জমিতে রাতের আঁধারে ঘর তোলেন এবং জমি দখল করেন। আমি তখন রাতের আঁধারে ঘর তোলার সংবাদ পেয়ে মুলাদী থানায় জানালে থানা পুলিশ স্থানীয় মেম্বরকে অবহিত করলে মেম্বর সরেজমিনে গিয়ে রাতের আঁধারে ঘর তোলার বিষয় সত্য বলে থানা পুলিশকে লিখিতভাবে জানায়। কিন্তু সে সময়ও আমি কোন প্রতিকার পাইনি। যার কারনে আজ আমার ভিটেমাটি আবু তালেব দখল করে রেখেছেন। এবং আমি যাতে আর কোন প্রতিবাদ করতে না পারি সেজন্য আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে একাধিক মামলা দায়ের করেছেন। তিনি আরো জানান, বর্তমানে একটি জমির শালিশী মিমাংসা করার জন্য মুলাদী থানার সার্কেল এসপি গতকাল ২৫ ফেব্রুয়ারী একটি সমঝোতা সভা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। কিন্তু তার ঘোষনার নির্ধারিত তারিখের পূর্বেও আমার বিরুদ্ধে কোর্ট একাধিক মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে আবু তালেব বাহিনী।

শুধু তাই নয়, গত ২৩ ফেব্রুয়ারী দিবাগত রাতে একটি পরিত্যক্ত ঘরে আবারো আগুনের মিথ্যা নাটক সাজিয়ে আমাকে আবারো মামলায় জড়ানোর হুমকী দিয়েছে আবু তালেব-বিশাই শরীফসহ তাদের সঙ্গীরা। আমি এখন নিরুপায় ও অসহায় হয়ে পড়েছি। এ ঘটনায় স্থানীয় মেম্বর হুমায়ূন কবির তফাদার জানান, আবু তালেব-বিশাই শরীফ দুষ্ট প্রকৃতির লোক। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের কোন অন্ত নেই। গত ২৩ ফেব্রুয়ারী আগুনের ঘটনা সম্পর্কে তিনি বলেন, এটা কোন বসবাসের ঘর ছিলো না। এই ঘরের জমি দখলের উদ্দেশ্যে আবু তালেব তার এক আত্মীয়কে থাকতে বলেন। আর ঘটনার দিন রাত আনুমানিক রাত ৯ টার সময় আবু তালেব ওই ঘরে থাকা তার সেই আত্মীয়কে ঘর ছেড়ে চলে যেতে বলেন। মেম্বর জানান, ওই লোক ঘর ছেড়ে রাতে চলে যাওয়ার সময় পথে মেম্বর জিজ্ঞাসা করলে তখন এ ঘটনা বলেন। মেম্বর দাবী করেন উক্ত আগুন লাগানোর ঘটনা সম্পূর্ন সাজানো নাটক। এছাড়া স্থানীয় চৌকিদারসহ এলাকাবাসী একটি ভিডিও বক্তব্যে মামলাবাজ আবু তালেব মোল্লা, বিশাই শরীফসহ তাদের সাঙ্গপাঙ্গদের কুকীর্তির কথা তুলে ধরেন। এছাড়া একই এলাকার বাসিন্দা মোঃ শহীদ বলেন, আমি দীর্ঘ বছরে সৌদিতে থাকি। আমার সাথে স্থানীয় কারো কোন ঝগড়া বিবাদ নাই। আমি গত মাসে ছুটিতে দেশে আসছি। আমার অবর্তমানে আমার জমি দখলের জন্য আমি দেশের আসার পরপরই আমার বিরুদ্ধে আবু তালেব ও বিশাই শরীফ কোর্টে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। আমি প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করি এবং সঠিক তদন্ত করে এই ভূমিখেকো, দখলবাজ, মামলাবাজ আবু তালেব-বিশাই শরীফদের আইনের আওতায় এনে বিচার দাবী করছি।

এ ঘটনায় মুলাদী থানার এসআই মোঃ সিদ্দিক বলেন, লোকমুখে শুনে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি। এখনো থানায় কেউ কোন কোন অভিযোগ দেয়নি।

মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ ফয়েজ উদ্দিন বলেন, আবু তালেব মোল্লা ও বিশাই শরীফ যেসব মামলা দায়ের করেছেন সেসব বিষয় নিয়ে কখনো থানায় আসেননি। তিনি থানায় কোন অভিযোগও দেননি। গত ২৩ ফেব্রুয়ারী অগ্নিকান্ডের ঘটনা সম্পর্কে তিনি জানান, ওই অগ্নিকান্ডের কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: