করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ০ ◈ আজকে মৃত্যু : ০ ◈ মোট সুস্থ্য : ২৬৭,০২৪
প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

যশোরে ছাত্রলীগের দীর্ঘ পরিশ্রমের ফলে মেস ভাড়া মওকুফ

১৪ আগস্ট ২০২০, ১০:১৫:২৯

স্বাধীন মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ,যশোর থেকে:- করোনা মহামারিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহি সংসদ গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রেখে চলেছেন। মেধা মনন আর কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে প্রতিটা কর্মসূচি পৌছে দিয়েছেন কেন্দ্র থেকে ওয়ার্ড পর্যন্ত। সারা দেশের ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা করোনা মোকাবেলায় এক যোগে কাজ করেছেন। সেই ধারাবাহিকতায় যশোর জেলা ছাত্রলীগ ও যশোর সরকারি এম এম কলেজ ছাত্রলীগও দিনরাত পরিশ্রম করেছেন। মাস্ক, স্যানিটাইজার, সাবান বিতরণ থেকে শুরু করে খাদ্য, বস্ত্র, ওষুধ, পর্যন্ত ও করোনার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া সকল ক্ষেত্রে সাধ্যমত সহযোগিতা করেছেন। যশোর জেলা ছাত্রলীগের একটি বৃহৎ এবং গুরুত্বপূর্ন ইউনিট এম এম কলেজ ছাত্রলীগ। এই করোনা মহামারির সময়ে এম এম কলেজ ছাত্রলীগ সাধারণ ছাত্রদের মেসভাড়া মওকুফের জন্য দিনরাত এক করে দিয়েছেন। জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী ও এম এম কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান তৌহিদ এর সার্বিক প্রচেষ্টায় অবশেষে মেসভাড়া ২৫% কমানো সম্ভব হয়।

যশোরে এই মেস ভাড়া অান্দোলন শুরু করেছিলেন রাশেদ আনোয়ার নামের একজন জেলা ছাত্রলীগের অত্যন্ত পরিশ্রমি ও মেধাবী কর্মী। তিনি প্রথমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খোলা চিঠি ভাইরাল করেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে “মেসভাড়া মওকুফ চাই” নামে একটি গ্রুপ খুলে সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের একত্রিত করতে থাকেন। বিষয়টি অবগত হন সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী ও এম এম কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান তৌহিদ। সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের পক্ষে প্রতিনিধি হিসাবে অতিরিক্ত জেলা প্রসাশক সাথে মেস মালিক বনাম সাধারণ শিক্ষার্থী বৈঠক হয়। বৈঠকে ৬০% ভাড়া মওকুফের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু পরবর্তীতে মেস মালিকরা স্বার্থ হাসিল করতে “মেস মালিক সমিতি” নামে একটা সংগঠন দাঁড় করায়। ৬০% ভাড়ার বিরুদ্ধে মেস মালিকরা সংঘবদ্ধ ভাবে অবস্থান নেন। বিভিন্ন সময়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে অশোভন আচারণ করতে থাকে। সেই সব ফোন রেকর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করে নীরবে প্রতিবাদ চালতে থাকে রাশেদ অানোয়াররা। সাধারণ শিক্ষার্থীদের মেসে মেসে গিয়ে ভাড়া কমানোর জন্য সে মালিকদের শুধু পা পর্যন্ত ধরতে বাকি রেখেছে। এর মধ্যে যখন কোনো ভাবে কোনো কিছু হচ্ছে না তখন পুনরায় জেলা প্রসাশক বরাবর স্মারক লিপি তুলে দেন। প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেন সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে। অবশেষে জেলা প্রসাশক মেস মালিক ও শিক্ষার্থী প্রতিনিধিদের সাথে দফায় দফায় বৈঠক শেষে মেস ভাড়া ২৫% মওকুফ করেন। যশোর জেলা ছাত্রলীগ ও এম এম কলেজ ছাত্রলীগের দীর্ঘ পরিশ্রম শেষে একটি সোনালি বিজয় অর্জন হয়। এই মেস ভাড়া আন্দোলন সহ কলেজের আশে পাশে অসহায়দের মাঝে খাদ্য বিতরণ, নিজ এলাকায় খাদ্য, মাস্ক, স্যানিটাইজার বিতরণ সহ বিভিন্ন সেবা মূলক কাজ অব্যহত রেখেছেন জেলা ছাত্রলীগের কর্মী রাশেদ আনোয়ার।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: