করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ৩,০২৭ ◈ আজকে মৃত্যু : ৫৫ ◈ মোট সুস্থ্য : ৭৮,১০২
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

রাঙ্গাবালীতে কিস্তি আদায়ে এনজিওগুলো তৎপর দিশেহারা গ্রাহকরা

২৮ জুন ২০২০, ১০:৩০:৪৪

বনি আমিন,রাঙ্গাবালী থেকে
সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় গ্রাহকদের কাছ থেকে চাপ প্রয়োগে কিস্তি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে বিভিন্ন বেসরকারী সংস্থা (এনজিও) আশা,গ্রামীণ ব্যাংকসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে।করোনা মহামারি শুরুর পর এমনিতে উপার্জন কমে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে নি¤œ আয়ের মানুষ। তার ওপর এনজিও’র কিস্তি তাদের কাছে মরার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দেখা দিয়েছে। তাদের অভিযোগ, কখনও মোবাইল ফোনে, কখনও বাড়িতে গিয়ে কিস্তি পরিশোধের জন্য গ্রাহককে নানাভাবে চাপ দিয়ে হয়রানী ও হুমকি দিচ্ছেন এনজিওগুলোর মাঠকর্মীরা।

সরকার করোনা পরিস্থিতিতে চলতি মাসের ৩০ জুন পর্যন্ত ক্ষুদ্র ঋণের কিস্তি শিথিলযোগ্য করলেও তা বাড়িয়ে আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে। তারপরও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় জোরপূর্বক অশোভন আচরণ করে ঋণের কিস্তি আদায় অব্যাহত রয়েছে। করোনা সংকটে এমনিতে কমে গেছে উপার্জন তার ওপর কিস্তির টাকা পরিশোধের চাপে দিশেহারা হয়ে পড়ছে গ্রাহকরা।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক গ্রাহক জানান, করোনার পর থেকে কাজ কাম নাই। ব্যবসা বানিজ্যও তেমন নাই। কিভাবে চলবো সেটা ভাবতেই দিন যায়।এহন কিস্তি দেয়া তো জুলুম হয়ে গেছে। তারপরও সম্পুর্ন টাকা অর্থাৎ ১০০০ টাকায় ৬০০ টাকা দিলে মাঠকর্মী ক্ষিপ্ত হয়ে নানা কথা বলেন। কোনো অজুহাত দেওয়া যাবেনা বলেও গ্রাহকদের সাথে অশোভন আচরণ করে। এ বিষয়ে বিভিন্ন সংস্থার উপজেলার একাধিক গ্রাহকরা জানান, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে কোনো ইনকাম না থাকায় কিস্তির চাপে খুব অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে আমাদের।

দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে করোনা পরিস্থিতি। আবারও লকডাউনে পড়তে যাচ্ছে বিভিন্ন এলাকা। এমন পরিস্থিতিতে এ সংকট মোকাবেলায় এনজিওগুলোর কিস্তি আদায় বন্ধে সরকারের কঠোর হস্থক্ষেপ দাবি করেছেন ভুক্তভোগীরা।

জানতে চাইলে এনজিও সংস্থার মাঠকর্মীরা বলেন, গ্রাহকদের কাছ থেকে ঋণের টাকা আদায়ে কোনো চাপ সৃষ্টি করি না।গ্রাহকেরা তাদের সুবিধামত টাকা দেয়।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাশফাকুর রহমান বলেন, যারা একান্ত দরিদ্র টাকার সংকট তাদের কাছ থেকে জোরপূর্বক কিস্তি আদায় করা যাবেনা। যদি জোরপূর্বক কিস্তি আদায় করা হয় তাহলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: