করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ০ ◈ আজকে মৃত্যু : ০ ◈ মোট সুস্থ্য : ৪৯৪,৭৫৫
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

লোহাগড়ায় তীব্র শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত

২৭ জানুয়ারি ২০২১, ১০:৫১:৩৩

জহুরুল হক মিলু, লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি

নড়াইলের লোহাগড়ায় প্রচ- শীতে ও কুয়াশায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। শীতের কারণে বৃদ্ধ ও শিশুরা বিপাকে পড়েছে। গরম কাপড়ের অভাবে অসহায় পরিবারগুলো ভোগান্তিতে পড়েছে।
গত তিন দিন ধরে ঘন কুয়াশার কারণে সূর্যের মুখ দেখা মেলেনি লোহাগড়ায়। এতে শীতের তীব্রতা বেড়ে গেছে। শৈত্যপ্রবাহের ফলে মানুষ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না। হঠাৎ শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ার খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষরা সবচেয়ে বেশি বেকায়দায় পড়েছে। এছাড়া শীতের কারণে বৃদ্ধ ও শিশুরা অসহায় জীবন যাপন করছে। গরম কাপড়ের অভাবের ছিন্নমুল মানুষ বেশি কষ্ট পাচ্ছে। বাস, ট্রাক ও অন্যান্য যানবাহন হেড লাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে। তবে রিকশা, ভ্যান, অক্টো চার্জারের যাত্রী ও চালকরা প্রয়োজনের তাগিদে ঘন কুয়াশার মধ্যে চলাচল করতে হচ্ছে। এদিকে গবাদি পশু তীব্র শীতের মধ্যে গো খাদ্য সংগ্রহের জন্য খোলা মাঠে চড়ানো হচ্ছে।
স্থানীয় মরিচ পাশা গ্রামের কৃষক মো. আলমগীর হোসেন জানান, প্রচ- শীতের কারণে মাঠে কাজ করা যাচ্ছে না। দিনরাত সমান শীতের কারণে তিনি কাহিল হয়ে পড়েছেন। কাউড়িখোলা গ্রামের প্রসাদ গাইন জানান, তীব্র শীতের জন্য গরম পোশাকে শীত নিবারণ করতে না পারাই আমরা আগুন জালিয়ে হাত-পায়ে তাপ দিচ্ছি। যাতে শীত কম লাগে।

উপজেলার মরিচ পাশা গ্রামের আমেনা বেগম জানান, এতো শীতে কিভাবে বাঁচবো বুঝে উঠতে পারছি না। কারণ একটাও শীতের গরম কাপড় নাই। একটা চাদর শরীরে দিয়ে শীত কাটাচ্ছি। আমাদের দেখার কেউ নাই।
লোহাগড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সহকারী মো. মনিরুজ্জামান বলেন, ১২টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় সরকারের পক্ষ থেকে ৭ হাজার ৫ শত পিচ কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। এদিকে তীব্র শীতের কারণে অনেকে ঠা-াজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে।
লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শরিফ সাহাবুর রহমান বলেন, শীতের কারণে অনেকে ঠা-াজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ছে। ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ১৫-২০ জন রোগীকে হাসপাতালে সেবা দেয়া হয়েছে। এছাড়া ঠা-াজনিত রোগে আক্রান্ত এবং অ্যাজমা রোগিদেরকে বিশেষ সেবা প্রদানের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: