fbpx
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

নাইম ইসলাম

বরিশাল প্রতিনিধি

সন্ত্রাসী শামীমের হামলায় বরিশালে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের পাঁচজন আহত

২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১:৫৯:৫২

বরিশাল ব্যুরো |-

বরিশাল নগরীর ভিআইপি কলোনির পেছনের গেট সংলগ্ন এলাকায় জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে এক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের পাঁচ সদস্যকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করেছে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যের দুই ছেলের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী বাহিনী। শুক্রবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

ইতিপূর্বে ওই সন্ত্রাসী বাহিনী আরো একবার মুক্তিযোদ্ধা মৌজে আলী ও তার পরিবারের সদস্যদের উপর হামলা চালায়। হামলারকারীর চাঁদমারী এলাকার ভূমিদস্যু হিসেবে পরিচিত নগর গোয়েন্দা সংস্থার সাবেক কনস্টেবল কবির হোসেনের ছেলে শামিম ও অলি। আর আহতরা হলেন— চরেরবাড়ির শামসুল হকের ছেলে রাইসুল হক রাজু, মুক্তিযোদ্ধা মৌজে আলী, তার মেয়ে মরিয়মসহ ৫ জন।

মুক্তিযোদ্ধা মৌজে আলী জানান, শুক্রবার তিনি তার ক্রয়কৃত জমিতে ঘর উত্তোলন করতে যান। এ সময় শামীম ও অলি তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে বাধা দেয়। তারা আগে থেকেই এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছে। তাদের চাঁদা টাকা না দিলে ওই জমিতে কোনভাবেই ঘর উত্তোলন করতে দেবে না বলে সাফ জানিয়ে দেয়। এ কারণে দাবিকৃত চাঁদা বাবদ ৫০ হাজার টাকা শামীমকে দেয়া হলেও তাদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড থেমে থাকেনি। চাঁদার জন্য বিভিন্ন সময় আমার উপর চাপ প্রয়োগ করে আসছে। এর জের ধরে সম্প্রতি সন্ত্রাসী শামীম তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে আমার জমিতে রাতের আধারে মাটি ভরাট করে আসছিল। তাতেও বাধা দেয়া হলে চাঁদা দিতে বলে। সর্বশেষ শুক্রবার জমিতে ঘর উত্তোলন করতে গেলে সন্ত্রাসী শামীম ও তার বাহিনী নিয়ে ঘর উত্তোলন করতে আসে। এ সময় বাকবিতণ্ডা হয়। এর একপর্যায়ে কোতোয়ালী মডেল থানা থেকে পুলিশ এসে উভয়কে কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়। নির্দেশ দেয়ার পর কাজ বন্ধ করা হলেও পুলিশের সামনে শামীমের দলবল ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়। তারা চরবাড়ির রাজুকে কুপিয়ে জখম করে। এ সময় বাধা দিলে আমাকে লাথি ও ঘুষি মারে। হামলা থেকে রক্ষা করতে আমার মেয়ে মরিয়ম এবং আমার স্ত্রীর বোনসহ আত্মীয়স্বজনরা এগিয়ে এলে তাদেরও মারধর করা হয়। এ সময় পুলিশ নীরব ভূমিকা পালন করে। এ ঘটনায় আমি এবং আমার জমির মালিক ছিলেন শামসুল হক বাদী হয়ে হত্যা চেষ্টা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিয়েছি।

মৌজে আলী আরো জানান, শামীম কেডিসির প্রতারক মুকুলী বেগমকে ওই স্থানে তার জমি রয়েছে বলে সাজিয়ে আনে। এখন শামীম ওই মুকুলীর সন্ত্রাসী হিসেবে কাজ করছে। আমার কাছ থেকে যা পাবে তা দুজনে ভাগবাটোয়ারা করে নেবে। এ কারণে মুকুলী বেগমকে সামনে ফেলে শামীম তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে আমার উপর চাঁদার জন্য চাপ সৃষ্টি করছে।

ঘটনাস্থলে থাকা এসআই সুলতান জানান, মীমাংসার জন্য উভয় গ্রুপকে থানায় আসার জন্য বলা হয়েছে।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: