করোনা লাইভ
আজকে আক্রান্ত : ২,৫২৩ ◈ আজকে মৃত্যু : ২৩ ◈ মোট সুস্থ্য : ৯,০১৫
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

সাতক্ষীরায় সরকারি ত্রাণ আত্মাসাৎ গাবুরা ইউ’পি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা মাসুদ

১০ এপ্রিল ২০২০, ১২:০১:১৭

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:

সাতক্ষীরা শ্যামনগর উপজেলার ১২নং গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জি এম মাসুদুল আলমের অনিয়ম, দুর্নীতি ও অসদাচরণের বিরুদ্ধে শ্যামনগর উপজেলা নিবার্হী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন ৯ ইউপি সদস্য। অভিযোগপত্র থেকে জানা যায়, ইউপি চেয়ারম্যান জিএম মাসুদুল আলম নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই স্থানীয় সরকার নীতিমালা না মেনে ইউপি সদস্যদের স্বাক্ষর ছাড়াই বিভিন্ন প্রকল্প নামমাত্র জমা দিয়ে বরাদ্দ আত্মসাৎ করছেন। এবং করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসন থেকে গত ইং ০১-০৪-২০২০ তারিখে ২,০০০ মেঃটন জি, আর, চাউল বরাদ্দ হয়। চাউল বিতরণের ক্ষেত্রে প্রত্যেক ওয়ার্ডে ১৯ জন দুস্ত ব্যাক্তির নােেমর তালিকা স্ব- স্ব ইউ’পি সদস্য কর্তৃক তালিকা ভুক্তির মাধ্যমে ১৯/৯=১৭১ জন দুস্ত ও হৃত দরিদ্র ব্যাক্তির মাঝে ১০ কেজি হিসাবে ১৭১০ মেঃ টন চাউল বিতরণ করা হয়। অবশিষ্ট ০,২৯০ মেঃ টন চাউল চেয়ারম্যানের নিজ দায়িত্ব রেখে গত ইং ০২-০৪-২০২০ ও ০৩-০৪-২০২০ তারিখে তার নিজ দলীয় ব্যানার টানিয়ে অর্থাৎ বিএনপি নেতা তারেক রহমানের নামে ও সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে বিতরণ করে, তাহার ফেসবুক আইডি থেকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন শুধু তাই নয় সরকারি বরাদ্দকৃত যে কোনো ত্রাণ সামগ্রী ও নগদ অর্থ বিতরণের ক্ষেত্রে ও তিনি ইউ’পি সদস্য / সদস্যাদের উপেক্ষা করে তার নিজস্ব দলীয় বিতর্কীত ব্যাক্তিদের দ্বারা অধিকাংশ তালিকা প্রণয়ন ও বিতরণ করায় জনমনে বাকি সদস্যাদের ভাবমূর্তি দারুণ ভাবে হেয় প্রতিপন্ন হচ্ছে। তাছাড়াও আর্থিক অনিয়মের কারণে ইউনিয়ন কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে, জনস্বার্থে ইউনিয়ন পরিষদের সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ইউ’পি চেয়ারম্যানকে অত্র ইউনিয়নের সরকারি ভাবে প্রাপ্ত ত্রাণ কার্যক্রম সহ আর্থিক কর্মকান্ড থেকে অব্যাহতি দিয়ে ১ নং প্যানেল চেয়ারম্যান ৬ নং ওয়ার্ড সদস্য জনাব জি এম আব্দুর রহিমের উপর দায়িত্ব অর্পনের সদয় নিদর্শনা প্রদানের জন্য উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ইউনিয়নবাসী। ইউনিয়নবাসীরা জানান, ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জি এম মাসুদুল আলমের বাবা চিহৃত রাজাকার প্রয়াত সোহরাব আলী, ১৯৭১ সালে এমন কোনো অপকর্ম নেই যা তিনি করেনি, হত্যা, লুটপাট, মুক্তিযুদ্ধা ক্যাম্পে পাকিস্তানিদের নিয়ে যাওয়া, লঞ্চ ডুবিয়ে দেওয়া সহ বিভিন্ন অপকর্মের হোতা ছিল, আমরা এলাকাবাসী চিহৃিত রাজাকার পুত্র দূর্নীতিবাজ ও সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন কারীর হাত থেকে মুক্তি চাই। এসময় অভিযোগকারীরা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান জি এম মাসুদুল আলমের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ কারার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: