প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

সাপাহারে রাস্তা বন্ধ করায় অবরুদ্ধ দু’টি পরিবার

১১ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৩১:৪২

সাপাহার (নওগাঁ)প্রতিনিধি:
নওগাঁর সাপাহারে দু’টি বসতবাড়ীর চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেয়ায় অবরুদ্ধ ওই পরিবার দু’টি এখন চরম মানবেতর জীবনযাপন করছে।
অসহায় পরিবারের থানায় দায়েরকৃত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে বিগত ৮বছর পূর্বে উপজেলার তাঁতইর গ্রামের আনারুল, আকালু, হযরত আলী ও আবুল কালাম নামের ৪ব্যক্তি সৈয়দপুর মৌজায় মাদ্রাসা ও পাকা রাস্তা সংলগ্ন এলাকায় বসতবাড়ী নির্মানের উদ্দেশ্যে কিছুৃ সম্পত্তি ক্রয় করে এবং উক্ত সম্পত্তির সম্মুখভাগে রাস্তা সংলগ্ন এলাকায় সকলেই রাস্তার জন্য ১২ফিট করে জায়গা ছেড়ে আপন আপন বসত বাড়ী নির্মান করবে বলে একটি ননজুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পে চক্তিনামা সম্পাদক করেন।

এর পর তারা ওই চুক্তিনামা মোতাবেক সকলের বাড়ীর সামনে ১২ফিট করে জায়গা রেখে আপন আপন বসতবাড়ী নির্মান করে বসবাস করতে থাকে। কিন্তু হঠাৎ করে অতিসম্প্রতি আনারুর নামের ওই ব্যক্তি চুক্তিনামার সকল শর্ত ভঙ্গ করে তার বাসতবাড়ীর সম্মুখভাগে ছেড়ে দেয়া রাস্তাটি সম্পুর্নরুপে পাকা ইটের দেয়াল দিয়ে বন্ধ করার ব্যাবস্থা করলে আকালু ও তার ছেলে তহুরুল তাতে বাধাপ্রদান করে। এসময় পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আনারুল ও তার লোকজন তাকে ও তার ছেলেকে মারপিট শুরু করে এক পর্যায়ে আকালুকে হত্যার উদ্দেশ্যে আনারুল একটি ধারালো ছুরি দিয়ে আকালুর গলায় একটি টান মারে। এসময় তার গলা হতে ফিনকি দিয়ে রক্ত বের হতে থাকলে তার ছেলে ও স্থানীয় লোকজন এসে তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে সাপাহার হাসপাতালে ভর্তি করে এবং শনিবার সন্ধায় স্থানীয় থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করে। এর পর পুলিশ ঘটনা স্থল পরিদর্শন পূর্বক থানায় মামলা দায়ের করলেও পুলিশ কোন ব্যাবস্থা গ্রহণ না করায় এখনও পরিবার দু’টি অবরুদ্ধ অবস্থায় রয়েছে বলে জানা গেছে। সরে জমিনে উক্ত এলাকায় গিয়ে পরিবার দু’টির সম্মুখভাগে বাঁশের রেলিং দিয়ে সম্পূর্ণরুপে রাস্তাটি বন্ধ অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়। এর পর চতুর আনারুল তার বিরুদ্ধে থানায় দায়েরকৃত মামলা থেকে অব্যহতি পেতে পর দিন থানায় পৃথক একটি কাউন্টার মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে আনারুল উক্ত রাস্তাটি বেড়া দিয়ে বন্ধ করে রাখায় অপর বাড়ীর লোকজন ওই রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে না পেরে অনেক পথ ঘুরে তাদের চলাচল করতে হচ্ছে। এবিষয়ে সাপাহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল হাই এর সাথে কথা হলে তিনি জানান যে, এবিষয়ে আমার ভাল জানা নেই, থানার অন্য অফিসার বিষয়টি দেখছেন তবে পরিবারগুলি অবরুদ্ধ হয়ে থাকলে বিষয়টি তদন্ত করে আমি ব্যবস্থা নিব বলে জানান।এর পর বিবাদ সৃষ্টিকারী আনারুল এর সাথে ফোনে কথা বলার চেষ্টা করে তাকে পাওয়া না যাওয়ায় তার কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি। বর্তমানে ওই এলাকায় আনারুল ও অপর তিন ঘর বসতবাড়ীর লোকজনের মধ্যে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে যে কোন মহুর্তে উভয় পক্ষের মধ্যে আবারো রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ঘটতে পারে বলে স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: