fbpx
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

মতলব উত্তরে তপাদার কল্যাণ সমিতির ঈদ পুনর্মিলনী, সাংস্কৃতিক ও সংবর্ধনা আনুষ্ঠান

সামাজিক সংগঠনের মাধ্যমে সামাজিক সুস্থতা আনা সম্ভব – প্রফেসার মো. জাকির হোসেন জামাল

১৫ আগস্ট ২০১৯, ১০:৩৬:৫৬

মতলব উত্তর উপজেলার তপাদার কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে ঈদ পুনর্মিলনী, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি প্রফেসার মো. জাকির হোসেন জামালকে ক্রেষ্ট প্রদান করছেন তপাদার কল্যাণ সমিতির নেতৃবৃন্দ।

মতলব উত্তর উপজেলার তপাদার কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে ঈদ পুনর্মিলনী, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও সংবর্ধনা প্রদান অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (১৪ আগস্ট) ফরাজীকান্দি ইউনিয়নের শাখারীপাড়া ইউসুফ আলী তপাদারের বাড়ীতে উৎসবমুখর পরিবেশে এ ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত হয়।
প্রায় দু’শতাধিক পরিবারের অংশগ্রহণে দিনব্যাপী ছিল ঈদ পুনর্মিলনীর অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন হাসানপুর শহীদ নজরুল সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসার মো. জাকির হোসেন জামাল।
প্রধান অতিথি প্রফেসার মো. জাকির হোসেন জামাল সবার সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ সময় তিনি সবাইকে এক ও অভিন্ন হয়ে স্ব স্ব অবস্থান থেকে দেশ ও নিজেদের উন্নয়নে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান। এমন একটি মিলনমেলা আয়োজন করায় তিনি সংগঠনের নেতাদের ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, প্রতিটি সামাজিক সংগঠনের মৌলিক বিষয় একই।

মতলব উত্তর উপজেলার তপাদার কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে ঈদ পুনর্মিলনী, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন- হাসানপুর শহীদ নজরুল সরকারী কালেজের অধ্যক্ষ প্রফেসার মো. জাকির হোসেন জামাল।

সামাজিক সংগঠন সবার মতকে শ্রদ্ধ করা, সদস্য হিসেবে নিজ দায়িত্ব পালন করা, নিজেকে বিকশিত করা, একসঙ্গে কাজ করতে উদ্বুদ্ধ হওয়া সহনশীল হওয়া, ইত্যাদি শেখায়। তাছাড়া সুনির্দিষ্ট কিছু মূল্যবোধের ভিত্তিতে কার্যক্রম পরিচালনা করতে ও শিক্ষা দেয় সামাজিক সংগঠন। এখন মানুষ মানুষে যে অসহিষ্ণুতা, অস্থিরতা সামাজিক অবক্ষয় দেখা যায় এগুলো দূর করতে হলে সুুস্থ সংস্কৃতির বিকাশ প্রয়োজন। সামাজিক সংগঠনের মাধ্যমে সামাজিক সুস্থতা আনা সম্ভব। নিজেকে একজন চৌকস মানুষ হিসবে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে একজন উদার মানুষ হতে হলে লেখাপড়ার পাশাপাশি একজন শিক্ষার্থীকে সামাজিক দায়বদ্ধতায় কাজ করতে হবে।
তিনি আরো বলেন, এসোসিয়শনের মাধ্যমে আমাদের মাঝে ঐক্য ও সম্প্রীতি, মানবতা এবং বাংলাদেশকে বুকে লালন করে দেশ প্রেমে সদাজাগ্রত থাকতে হবে। তিনি সকলকে নিজেদের মধ্যে ঐক্য এর বন্ধন ধরে রাখতে পদ-পদবী লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে উঠে কাজ করার আহ্বান জানান। এমন ঈদ পুনর্মিলনীর মত অনুষ্ঠান ভ্রাতৃত্ববোধ বৃদ্ধি করে। তবে আমাদের লক্ষ্য হবে, আমরা যেন দেশের জন্য ভালো কিছু করতে পারি এবং দেশকে আরও ভালোবাসতে পারি।
জাহাঙ্গীর আলম তপাদারের সভাপতিত্বে ও গনি তপাদারের সঞ্চালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন সংবর্ধিত অতিথি ড. আহমেদ হুসেইন। আরো বক্তব্য রাখেন, অবসর প্রাপ্ত সরকারী চাকুরীজীবি মহসিন খোকন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নুরুল আমিন তপাদার কাজল, শিল্পপতি আলহাজ্ব নবীর হোসেন তপাদার, (অব:) প্রধান শিক্ষক এমএ হান্নান, সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার মো. আকতার হোসেন।

মতলব উত্তর উপজেলার তপাদার কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে ঈদ পুনর্মিলনী, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সংবর্ধিত অতিথি ড.আহমেদ হুসেইনকে ক্রেষ্ট প্রদান করছেন তপাদার কল্যাণ সমিতির নেতৃবৃন্দ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, শিক্ষক হারুন অর রশীদ, গোলাম হোসেন তপাদার, কাওসার আহমেদ তপাদার, রহমান তপাদার, বিভিন্ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মো. মারুফ হোসেন, মো. সাফায়েত আলী, নাইমুল হাসান নাঈম, তালহা বিন আহমাদ, তারিফুল হাসান সাদ, মাজহারুল ইসলাম শুভ।
পরে অতিথিবৃন্দ তপাদার বাড়ীর কৃতিসন্তান ড. আহমেদ হুসেইনকে ক্রেষ্ট প্রধান করেন।
সাবার ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানটির আয়োজনে ছিল প্রাণের ছোঁয়া। মজাদার খাবার, নাচ-গান আর আড্ডায় ভরপুর অনুষ্ঠানটি দেখতে দেখতেই শেষ হয়ে যায়। কিন্তু রেখে যায় আনন্দের কিছু স্মৃতি, দৃঢ় হয় বন্ধুত্ব, সৌহার্দ্য ও ঐক্যের বন্ধন।
পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের মধ্যাহ্নভোজনে দেশি ও সুস্বাদুু খাবার পরিবেশন করা হয়। অনুষ্ঠানে সাস্কৃৃতিক অনুষ্ঠান, র‌্যাফেল ড্র আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয় এবং সকলকে ঈদ উপহার দেওয়া হয়।

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: