প্রচ্ছদ / সম্পদকীয় / বিস্তারিত

সড়ক দূর্ঘটনা রোধে আমরা সচেতন কী?

৩০ মে ২০১৯, ৭:২৬:৩২

আমাদের দেশে একটি সড়ক দূর্ঘটনা ঘটলে আমরা ভেবেই নেই যে, দূর্ঘটনাটি ঘটার পিছনে হয় ড্রাইভারের দোষ, না হয় সরকারের দায় রয়েছে। কিন্তু আমরা একটি কথা কখনো ভাবি না যে, এসব সড়ক দূর্ঘটনায় আমাদের কি কোনো দোষ নেই? কোনো দায়বদ্ধতা নেই?

সড়ক দূর্ঘটনা নিয়ে গবেষণারত রুয়েট( রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়) এর অ্যাকসিডেন্ট রিসার্চ ইন্সটিটিউটের পরিচালক প্রফেসর ড. হাসিব মোহাম্মদ আহসান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি তথ্য প্রদান করেছেন। আর তা হল- ঢাকাসহ দেশের শহরগুলোতে যেসব দূর্ঘটনা ঘটছে তার ৪৫ শতাংশের জন্য পথচারীরা দায়ী। তার মানে আমরা পথচারীরা সচেতন হলেই মোট দূর্ঘটনার ৪৫ শতাংশ কমিয়ে ফেলতে পারি।

গত বছর আমরা শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে দেশে আলোড়ন সৃষ্টিকারী একটি আন্দোলন করি। কিন্তু এর কয়েকদিন পরই দেখা যায়, ঢাকা শহর তার আগের রূপেই ফিরে গেছে। আমরা শিক্ষার্থীরা যারা আন্দোলন করেছি, তাদেরকেই দেখা যায় স্কুল -কলেজের সামনে ওভারব্রীজ থাকা স্বত্বেও রাস্তা পারাপারের ক্ষেত্রে ওভারব্রীজ ব্যবহার করিনা। জেব্রা ক্রসিং একটু সামনে থাকা স্বত্বেও আমরা রাস্তার মাঝখান দিয়ে হাত দেখিয়ে রাস্তা পারাপার হচ্ছি।

বর্তমানে মোবাইলে কথা বলতে বলতে বা মোবাইল চালানো অবস্থায় হাটা যেন অনেকের অভ্যাস হয়ে দাড়িয়েছে। অনেক মানুষকেই দেখা যায় আবার মোবাইলে কথা বলা অবস্থায় রাস্তা পারাপার হচ্ছে। এমন অবস্থায় দূর্ঘটনা হওয়াটা অস্বাভাবিক বলে বিবেচিত হবেনা।

যাত্রীদের অসহিষ্ণুতা ও দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছানোর মানসিকতা সড়ক দূর্ঘটনার অন্যতম একটি কারণ বলে আমি মনে করি।

সড়ক দূর্ঘটনা রোধে ড্রাইভার ও সরকারের সচেতনতার পাশাপাশি পথচারীদেরকে ও সচেতন হতে হবে। নিজে দায়িত্ববান না হয়ে অন্যকে দায়িত্ববান হতে বলাটা কতটা যৌক্তিক তা প্রশ্নের দাবী রাখে। অন্যের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে আত্মাহুতির মিছিলে যোগ দেয়া নিশ্চয়ই বুদ্ধিমানের কাজ নয়! তাই আসুন আত্মরক্ষায় সচেষ্ট হই। নিজে সচেতন হই, অন্যদের সচেতন করি।তবেই সড়কে মৃত্যুর মিছিল কমে আসবে বলে আশা করছি।

নাম: মোজাম্মেল হক
শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

দৈনিক আলোর প্রতিদিন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: